সোমবার অন্টারিওর স্কুলগুলো খুলছে কি!

Thu, Dec 30, 2021 1:38 AM

সোমবার অন্টারিওর স্কুলগুলো খুলছে কি!

শ্ওগাত আলী সাগর : সোমবার অন্টারিওর স্কুলগুলোয় ছুটি পরবর্তী ক্লাশ শুরুর দিন। নতুন করে কোনো ঘোষনা না  দেয়া  হলে সোমবারের সকালে ছেলেমেয়েদের ক্লাশে যাওয়ারই কথা। কিন্তু তবু অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন। সোমবার  কি আসলেই স্কুল খুলবে? ইন পার্সন ক্লাশ হবে? নাকি আবারো অনলাইনে ভার্চুয়াল ক্লাশ! অভিভাবক, শিক্ষার্থীরা  হণ্যে  হয়ে এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজছেন। কিন্ত ডাগ ফোর্ডের প্রভিন্সিয়াল সরকার স্পষ্ট কোনো বক্তব্য নাগরিকদের সামনে তুলে ধরেননি। ‘আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই এই ব্যাপারে ঘোষনা দেয়া হবে’- এমন একটি বক্তব্য দিয়েই তিনি বসে আছেন।

স্কুল খুলবে কী খুলবে না- এই প্রশ্নটি সামনে এসেছে কোভিডের নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিস্তারের কারনে। কোভিডের সংক্রমণরোধে প্রভিন্সিয়াল সরকার বেশ কিছু বিধি নিষেধ আরোপ করেছেন। ইনডোরে দশ জনের বেশি সমাবেশ করা যাবে না বলে ঘোষনা আছে। স্কুলগুলোয় প্রতিটি ক্লাশে বিশের অধিক শিক্ষার্থী আছে। অনেক স্কুলে তার চেয়েও বেশি।  সঙ্গত কারনেই সরকারের সুষ্পষ্ট একটা বক্তব্যের দরকার আছে। কুইবেক, নিউফাউন্ডল্যান্ডসহ বেশ কয়েকটি প্রভিন্স স্কুল খোলার সময় পিছিয়ে দিয়েছে। ওই প্রভিন্সগুলোতে। ৩ জানুয়ারির বদলে ১০ জানুয়ারি স্কুল  খুলছে ।

 অন্টারিওতেও  কী তেমন কিছু হবে? সেটি হয়ত  আজ শুক্রবার বিকেলে ডাগফোর্ডের ক্যাবিনেট মিটিং এর পরে জানা যাবে। স্কুল খোলা না খোলাসহ আরো বেশি কিছু বিষয় নিয়ে এই মিটিং এ আলোচনা হবার কথা রয়েছে।

 প্রভিন্সিয়াল সরকার স্কুল খোলা খানিকটা পিছিয়ে  দিতে পারেন বলে ছুটির আগে একটা আলোচনা ছিলো। স্কুলগুলো প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে ছুটির সময় তাদের ব্যক্তিগত সামগ্রী বাড়ীতে  নিয়ে আসার নির্দেশনা দিয়েছিলো সে সময়। ফলে অনেকেই মনে করেছেন ক্রিসমাসের ছুটির পর ইন পার্সন ক্লাশ সহসা শুরু হচ্ছে না। কিন্তু সরকারের পক্ষ থেকে তখন  বলা হয়েছিলো- তারা এই ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত এখনো নেননি।

স্কুল খোলার আর মাত্র  দুইদিন বাকি। এখনো তারা স্পষ্ট করে কোনো সিদ্ধান্তের কথা জানাননি।

তবে সোমবার স্কুলগুলো ইনপার্সন ক্লাশ শুরু করা নিয়ে বিভিন্ন রকমের মত আছে। অভিভাবকদের অনেকের মধ্যে সংশয়, শিক্ষক, কর্মচারীদের মধ্যে অনীহা থাকলেও প্রভিন্সের ৬০০ জন চিকিৎসক প্রিমিয়ার ডাগ ফোর্ডকে চিঠি লিখে স্কুল খোলা রাখার আহ্বান জানিয়েছেন। তারা বলেছেন, ২০০০ সালের মার্চ মাস থেকে দীর্ঘ সময় বন্ধ এবং ভার্চুয়াল ক্লাশের কারনে ছেলেমেয়েদের  মানসিক স্বাস্থ্যের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। ৬০০ জন চিকিৎসকের চিঠিতে স্কুলগুলোকে অত্যাবশ্যকীয় সেবাখাত হিসেবে ঘোষনার দাবি জানানো হয়েছে।

৬০০ জন  চিকিৎসক স্কুল খোলা রাখার পক্ষে অনেকগুলো যুক্তি তুলে ধরেছেন। স্কুলগুলোকে ‘এসেন্সিয়াল সার্ভিস’ হিসেবে ঘোষনার দাবিটি আমার কাছে অভূতপূর্ব  বলে মনে হযেছে। আমি এই দাবিকে পরিপূর্ণভাবে সমর্থন জানাই। স্কুল অবশ্যই এসেনশিয়াল  সার্ভিস খাত, এই খাতের ধারাবাহিক কার্যক্রমে কোনো ধরনের বিঘ্ন ঘটানো ঠিক না।

প্রশ্ন  উঠতে পারে- ৬০০ জন চিকিৎসক কি তা হলে ছেলে মেয়েদের স্বাস্থ্যের  নিরাপত্তার বিষয়টি দেখেননি। অবশ্যই দেখেছেন। তারা স্পষ্ট করেই বলেছেন- ‘টেষ্ট টু স্টে’ পলিসি অবলম্বন করে স্কুলগুলোকে কোভিডের সংক্রমণ থেকে  নিরাপদ রাখা সম্ভব।

স্কুল বন্ধের আগে শিক্ষার্থীদের হাতে ১১ মিলিয়ন রেপিড এন্টিজেন টেস্ট কীট তুলে দেয়া হয়েছিলো। লক্ষণ দেখা মাত্রই বা সন্দেহ হওয়া মাত্রই শিক্ষার্থী, শিক্ষককরা টেস্ট করে নিশ্চিত হতে পারছেন। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও নিতে পারছেন। ৬০০ চিকিৎসক মনে করেন,কোভিডের অজুহাতে স্কুল বন্ধ রাখার চেষ্টাটা দু:খজনক।

 প্রিমিয়ার ডাগ ফোর্ড জানিযেছেন, তার শিক্ষামন্ত্রী স্কুল খোলা না খোলার বিষয়টা নিয়ে আলোচনা  করছেন। প্রভিন্সের প্রধান মেডিকেল অফিসারের পরামর্শেই তিন প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন। প্রধান মেডিকেল অফিসার কি পরামশৃশ দেবেন সে ব্যাপারে আন্দাজ করা কঠিন। তবে সোমবার ছেলেমেয়েদের  ক্লাশে যেতে হবে কী না  তা জানার  জন্য আজ বিকেল পর্যন্ত অপেক্ষাই করতে হবে।

লেখক: শওগাত আলী সাগর, প্রধান সম্পাদক, নতুনদেশ


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Future Station Ltd.
উপরে যান