নোবেল পুরস্কার ২০২১: সাহিত্যে পাচ্ছেন কে এবছর?

Wed, Oct 6, 2021 8:18 AM

নোবেল পুরস্কার ২০২১: সাহিত্যে পাচ্ছেন কে এবছর?

সৈকত রুশদীঃ ফরাসী কথাসাহিত্যিক এনি আরনো, কানাডার কথাসাহিত্যিক মারগারেট এটউড ও কবি এ্যান কারসন, নাকি জনপ্রিয় জাপানী কথাসাহিত্যিক হারুকি মুরাকামি? নাকি অন্য কেউ?

এই সকল প্রশ্নের উত্তর মিলবে বৃহস্পতিবার (৭ অক্টোবর ২০২১)। সুইডেনের রাজধানী স্টকহোম থেকে নোবেল কমিটি যখন সাহিত্যের জন্য 'নোবেল পুরস্কার ২০২১' ঘোষণা করবে।

হেমন্তের বর্ণচ্ছটার সাথে অক্টোবর মাসের আগমনীর সময় হলেই বিশ্বের জ্ঞান-বিজ্ঞান-অর্থনীতি-সাহিত্য মহল ও বিশ্ব শান্তি সহ মানব কল্যাণে নিবেদিত শীর্ষস্থানীয় ব্যক্তিত্বের অনেকের মধ্যে বিশ্ব সংবাদের প্রতি বাড়তি আগ্রহ লক্ষ্য করা যায়।

বিশ্ব জুড়ে সজাগ হয়ে ওঠেন এসকল ক্ষেত্রের প্রতি মনোযোগী ব্যক্তিদের অনেকে এবং সাংবাদিকরা। বিশেষ করে, পশ্চিমা বিশ্বে আগ্রহটি বেশি লক্ষ্য করা যায়।

কেননা, প্রতি বছর এই সময়ে জ্ঞান-বিজ্ঞান-অর্থনীতি-সাহিত্য ও মানব কল্যাণে অবদান রাখা ব্যক্তিদের জন্য পৃথিবীর সবচেয়ে নামী স্বীকৃতি নোবেল পুরস্কার ঘোষণা করা হয়।

নোবেল পুরস্কার সম্মাননায় রয়েছে একটি স্বর্ণ পদক, একটি ডিপ্লোমা ও নগদ অর্থ পুরস্কার।

২০২০ সালে এই পুরস্কারের অর্থ মূল্য ছিল ১ কোটি সুইডিশ ক্রোনার। মার্কিন ডলার সাড়ে ১১ লাখ। বাংলাদেশী প্রায় সাড়ে ১০ কোটি টাকা।

বিজ্ঞানী, প্রকৌশলী, উদ্ভাবক ও মানবহিতৈষী স্যার আলফ্রেড বার্নহার্ড নোবেল-এর দান করা অর্থে 'নোবেল ফাউন্ডেশন' জ্ঞান-বিজ্ঞান-সাহিত্য ও বিশ্ব শান্তিতে অবদান রাখার জন্য এই পুরস্কারের প্রবর্তন করে একশ" কুড়ি বছর আগে, ১৯০১ সালে।

আটষট্টি বছর পর, ১৯৬৯ সালে প্রবর্তিত হয় অর্থনীতিতে 'নোবেল স্মারক' পুরস্কার। এর জন্য অর্থ প্রদান করে সুইডেনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক সারিয়েস রিকসব্যাংক (Sveriges Riksbank)।

প্রথমে যে পাঁচটি ক্ষেত্রে নোবেল পুরস্কার সূচিত হয় সেগুলো হচ্ছে, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন বিজ্ঞান, চিকিৎসা বিজ্ঞান, সাহিত্য ও শান্তি। সুইডেনের তিনটি একাডেমী প্রথম চারটি পুরস্কার প্রদান করে। আর শান্তিতে নোবেল পুরস্কার প্রদান করে নরওয়ে'র নোবেল কমিটি।

বিগত ১২০ বছরে নোবেল পুরস্কার দেওয়া হয়েছে ৬০৩টি। আর এই পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন যার যার ক্ষেত্রে অবদান রাখা ৯৬২ জন বিশিষ্ট মানুষ ও ২৫টি সংস্থা।

চার অসাধারণ গুণী ব্যক্তিত্ব একাধিকবার নোবেল পুরস্কারের বিরল সম্মান অর্জন করেছেন।

তবে আগেকার দিনে নোবেল পুরস্কারকে যতোটা মর্যাদাপূর্ণ বিবেচনা করা হতো, এই পুরস্কার বাছাই ও প্রদান নিয়ে নানা বিতর্কের কারণে বর্তমানে সেই মর্যাদা ও আগ্রহ আর নেই।

সম্প্রতি এর সাথে যোগ হয়েছে নোবেল কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদের ব্যক্তির যৌন কেলেংকারীর অভিযোগ।

নোবেল পুরস্কারের মাপকাঠিতে বিশ্ব রাজনীতি, ভাষা, বর্ণ, স্থান (দেশ/মহাদেশ), ক্ষেত্রবিশেষে ধর্ম, ইত্যাদিও বিবেচনায় থাকে।

এর উজ্জ্বল প্রমাণ নোবেল শান্তি পুরস্কার।

এই পুরস্কারটি প্রায় সময়ই বিতর্কের সৃষ্টি করে। কেননা, দেখা গেছে অনেক সময় যুদ্ধবাজ রাষ্ট্রনায়কদের এই পুরস্কারে ভূষিত করা হয়েছে।

নোবেল শান্তি পুরস্কারে ভূষিত কোনো কোনো ব্যক্তি পরবর্তীকালে মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ বা যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্তও হয়েছেন। যার মধ্যে, রোহিঙ্গাদের স্বদেশ থেকে বিতাড়নকারী মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের অন্যতম অং সান সূ চি।

নোবেল সাহিত্য পুরস্কারও বিতর্ক থেকে খুব বেশি দূরে থাকতে পারেনি বলে কালের সেরা লেখকদের বেশিরভাগই এই পুরস্কারের বাইরে থেকে গেছেন।

বরং বলা হয়ে থাকে, সবচেয়ে বেশি প্রভাবশালী, সুপরিচিত ও জনপ্রিয় লেখকরা প্রায়শঃই বাদ পড়েছেন নোবেল পুরস্কারের সম্মাননা থেকে।

তারপরও সাধারণ মানুষের বেশি আগ্রহ থাকে নোবেল সাহিত্য ও শান্তি পুরস্কারের প্রতি।

এবছর নোবেল পুরস্কারের সম্মাননা প্রাপ্তদের নাম ঘোষণা শুরু হয়েছে ৪ অক্টোবর থেকে, চিকিৎসা বিজ্ঞান দিয়ে।

৫ অক্টোবর পদার্থ বিজ্ঞান, ৬ অক্টোবর রসায়ন বিজ্ঞান, ৭ অক্টোবর সাহিত্য, ৮ অক্টোবর শান্তি এবং ১১ অক্টোবর অর্থনীতিতে 'নোবেল স্মরণে সারিয়েস রিকসব্যাংক পুরস্কার' ঘোষণা নির্ধারণ করা হয়েছে।

সাহিত্য

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম থেকে জানা যাচ্ছে, এবারে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কারের সংক্ষিপ্ত তালিকার শীর্ষে আছেন ফরাসী কথাসাহিত্যিক এ্যানি আরনো।

তারপরই কানাডার কবি এ্যান কারসন। এর পর জনপ্রিয় জাপানী কথাসাহিত্যিক হারুকি মুরাকামি। রুশ ঔপন্যাসিক লুদমিলা উলিৎস্কায়া। কানাডার জনপ্রিয় লেখক মার্গারেট এটউড। গুয়াদেলোপীয় ঔপন্যাসিক মারিস কন্দে। আর উপনিবেশবাদ বিরোধী কেনীয় লেখক গুগি ওয়া থিওঙ্গো।

এই সাতজনের মধ্যে মুরাকামি ও থিওঙ্গো ছাড়া পাঁচ জনই নারী। চার জন শ্বেতাঙ্গ, দুই জন কৃষ্ণাঙ্গ ও একজন এশীয় মঙ্গোলীয়।

'নোবেল সাহিত্য পুরস্কার ২০২১'-এর সম্মাননার দৌড়ে ফরাসী লেখক এ্যানি আরনো এগিয়ে আছেন বলে বেশিরভাগ বিশেষজ্ঞের ধারণা।

কানাডীয়রা আশা করছেন লেখক মার্গারেট এটউড অথবা কবি এ্যান কারসন এই সম্মাননা অর্জন করবেন।

তবে আমার কাছে মনে হয়েছে, উপনিবেশবাদ বিরোধী কেনীয় লেখক গুগি ওয়া থিওঙ্গো যদি এই সম্মাননা অর্জন করেন, তবে তা' হবে সাহিত্যের মাধ্যমে নিপীড়ন ও নব্য উপনিবেশবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কণ্ঠের প্রতি আস্থার সর্বোচ্চ স্বীকৃতি।

ছবিতে (বাম থেকে ডানে): নোবেল পুরস্কার; এ্যানি আরনো; গুগি ওয়া থিওঙ্গো; এ্যান কারসন; মার্গারেট এটউড; হারুকি মুরাকামি; মারিস কন্দে; ও লুদমিলা উলিৎস্কায়া।

টরন্টো

৬ অক্টোবর ২০২১


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Future Station Ltd.
উপরে যান