ল্যানসেট এ প্রকাশিত মতামতের ভয়াবহ বিকৃতি

Fri, Apr 23, 2021 10:11 PM

ল্যানসেট এ প্রকাশিত মতামতের ভয়াবহ বিকৃতি

রুবায়েত হাসান তানভি: "কোভিড-১৯ নিয়ে এই মুহূর্তে সবচেয়ে আলোচিত ল্যানসেট রিপোর্ট" - এই শিরোনামে একটা নিউজ রিপোর্ট সোশ্যাল মিডিয়াতে ভেসে বেড়াচ্ছে।  কিন্তু দুঃখজনক হলো সারা বিশ্বব্রম্মান্ড তন্ন তন্ন করে খুঁজে ১০৮ টি লাল পদ্ম খুঁজে পেলেও এই সবচেয়ে আলোচিত রিপোর্ট নিয়ে তেমন কোনো আলোচনা খুঁজে পেলাম না।  যা পেলাম তা হলো সম্প্রতি ল্যানসেট এ প্রকাশিত একটি মতামত, যেখানে লেখকগণ সার্স-কোভি-২ ভাইরাস যে বাতাসের মাধ্যমেও ছড়ায় তার ১০ টি বিজ্ঞানসম্মত কারন নিয়ে আলোচনা করেছেন।  ল্যানসেট রিপোর্ট নিয়ে আমাদের দেশের একটি প্রধান দৈনিকে যে নিউজ রিপোর্ট টি করা হয়েছে, তার তথ্য সূত্র যদি ল্যানসেট এর এই কমেন্ট্রি হয়, তবে বলবো ল্যানসেট এর প্রকাশিত মতামতের ভয়াবহ বিকৃতি ঘটেছে এই রিপোর্টে।

শ্বাসতন্ত্রীয় ভাইরাস সাধারণত এয়ারবর্ন ট্রান্সমিশন (যাকে বাংলায় বাতাসের মাধ্যমে ছড়ানো বলা হয় ), ড্রপলেট ট্রান্সমিশন বা  কন্টাক্ট (সংস্পর্শ) ট্রান্সমিশন  এর মাধ্যমে ছড়ায়। এয়ারবর্ন ও ড্রপলেট ট্রান্সমিশন এর পার্থক্য কি ? সোজা কথায় পার্থক্য হলো আমাদের হাঁচি, কাশি, কথা বলা, নিশ্বাস প্রশ্বাস বা চিৎকার এর সাথে আমাদের শ্বাসতন্ত্র থেকে বের হয়ে আসা জলীয় কণার আকারে পার্থক্য।  এসব জলীয় কণার আকার যত ছোট তত বেশি সময় এরা বাতাসে ভেসে থাকতে পারে।  আর কণার আকার যত বড় তত দ্রুত তারা বাতাস থেকে মাটিতে পরে যাবে। যেসব ভাইরাস এর এয়ারবর্ন ট্রান্সমিশন হয় বা এরোসল বা অতিক্ষুদ্র জলীয় কণার মাধ্যমে ছড়াতে পারে সেসব ভাইরাস তার উৎস থেকে বেশি দূরে পর্যন্ত ছড়াতে পারে।  কিন্তু এর মানে এই না যে কোনো ভাইরাসের এয়ারবর্ন ট্রান্সমিশন হলে তা ড্রপলেট ট্রান্সমিশন হবে না বা কন্টাক্ট ট্রান্সমিশন হবে না। করোনাভাইরাস এর ক্ষেত্রেও তাই , এয়ারবর্ন , ড্রপলেট বা  কন্টাক্ট যেকোনো ভাবেই ছড়াতে পারে । আসল ব্যাপার হলো যে কোনো ভাবে ভাইরাসের সংস্পর্শে আসা ও নিঃশ্বাসের সাথে যথেষ্ট পরিমান ভাইরাস আমাদের শ্বাসতন্ত্রে নিয়ে নেওয়া যার থেকে রোগের উৎপত্তি।  সবচেয়ে বেশি কিভাবে ছড়ায় তা নিয়ে বিতর্ক থাকতে পারে। কিন্তু একভাবে ছড়ালে আরেকভাবে ছড়াবেনা তা কখনোই বলা যায় না। 

একটা উদাহরণ দেই, যক্ষা রোগের কথা ধরুন।  যক্ষা রোগের জীবাণু মাইকোব্যাক্টেরিয়াম টিউবারক্যুলোসিস এয়ারবর্ন ট্রান্সমিশনের মাধ্যমে বা বাতাসের মাধ্যমে ছড়ায় বলে জানা আছে। একারণে হাসপাতালে যক্ষা রোগীদের সেবা দেবার সময় সর্বোচ্চ সতর্কতা নিতে হয়।  পিপিই পরে, এন-৯৫ মাস্ক পরে, গ্লাভস পরে রোগীর কাছে যেতে হয়। এসব ক্ষেত্রে শুধু রোগী থেকে এক দু মিটার দূরে থাকলেই নয় রোগীর রুমে ঢুকলেও এসব সাবধানতা নিতে হয়। রোগীর সংস্পর্শে আসলে হাত সাবান দিয়ে ধুতে হয়। তার মানে হলো এসব রোগীর চিকিৎসা দেবার সময় কন্টাক্ট + ড্রপলেট + এয়ারবর্ন সবগুলো প্রিকশান  নিতে হয় , রোগীকে আলাদা বিশেষ ঘরে রাখতে হয়।  কিন্তু আবার বাতাসে ছড়ায় বলে এর মানে এই না যে জীবাণু এই রোগী থেকে আকাশে বাতাসে ছড়িয়ে, হাসপাতালের সব রোগী বা সে এলাকার সব মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ব। রোগীকে ঠিকভাবে আইসোলেট করে ও প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি আরোপ করার মাধ্যমেই রোগের সংক্রমণ প্রতিরোধ করতে হয়। 

মহামারীর শুরু থেকেই অন্যান্য করোনাভাইরাস ও শ্বাসতন্ত্রীয় অন্যান্য ভাইরাসের সাথে তুলনা করে এবং এপিডেমিওলজিকাল ডাটা র উপর ভিত্তি করে বলা হয়েছে যে সার্স-কোভি-২ ভাইরাস বাতাসের মাধ্যমে ছড়ায় না। কিন্তু এ নিয়ে আরো অনেক গবেষণা চলছে, এবং নতুন নতুন প্রমান আসছে যে এই ভাইরাস বাতাসের মধ্যেও ছড়াতে পারে।  ল্যানসেট এ প্রকাশিত মতামতভিত্তিক পেপারটিতেও তাই বলা হয়েছে।  কিন্তু এই পেপার টা কে সূত্র ধরে ও তার ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে যেসব বলা হয়েছে যেমন: "কোভিড রোগ কোনমতেই হাঁচি, কাশি, কফ, থুতু দিয়ে ছড়ায় না" বা " বারবার হাত ধুয়ে, স্যানিটাইজার ব্যবহার করে, বাইরে থেকে ফিরেই জামাকাপড় স্যানিটাইজ করলে কোনো লাভ নেই" - এসব সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও কল্পনা প্রসূত।  এভাবে না জেনে, না বুঝে শুধু মাত্র বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞানীদের বা ল্যানসেট জার্নালের বরাত দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করাটা চরম দায়িত্বহীনতার পরিচয়। যে ব্যাপারটা বোঝা প্রয়োজন যে , করোনারোগের উৎস হলো আরেকজন আক্রান্ত মানুষ। আপনি অরক্ষিত অবস্থায় (মাস্ক না পরে বা হাত স্যানিটাইজ না করে ) সে রোগীর যত কাছে থাকবেন, এয়ারবর্ন হোক বা ড্রপলেট হোক বা কন্টাক্ট হোক সব মাধ্যমেই ভাইরাস আক্রান্ত হবার ঝুঁকি থাকবে। ভাইরাস বাতাসের মাধ্যমে ছড়ায় এর প্রমান মিলার মানে এই না যে অন্যান্য মাধ্যমে ছড়ানোর ঝুঁকিটা মিথ্যে হয়ে গেছে বা এপর্যন্ত যেসব স্বাস্থ্যবিধির উপর জোর দেওয়া হয়েছে সেসব বাতিল হয়ে গেছে।

Conclusion from Lancet commentary: "In conclusion, we propose that it is a scientific error to use lack of direct evidence of SARS-CoV-2 in some air samples to cast doubt on airborne transmission while overlooking the quality and strength of the overall evidence base. There is consistent, strong evidence that SARS-CoV-2 spreads by airborne transmission. Although other routes can contribute, we believe that the airborne route is likely to be dominant. The public health community should act accordingly and without further delay." [Greenhalgh et al., April 15, 2021, Lancet]

লেখকের ফেসবুক পোষ্ট থেকে


Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান