ডলি বেগমের ফেমিনিন হাইজিন প্রোডাক্ট ডোনেশন

Thu, Dec 3, 2020 7:04 PM

ডলি বেগমের ফেমিনিন হাইজিন প্রোডাক্ট ডোনেশন

শওগাত আলী সাগর: ডিসেম্বর মাস হচ্ছে কানাডার ‘হলি ডে সিজন’- ছুটির মৌসুম। ক্রিসমাস আর ছুটি মিলিয়ে বছরের সবচেয়ে বড় উৎসব হিসেবে বিবেচিত হয় এই মৌসুমটাই। এই সময়টায় কানাডীয়ানরা তাদের স্বজন, বন্ধুবান্ধবের সাথে উপহার বিনিময় করে। যাদের উপহার দেয়ার কেউ নেই কিংবা সামর্থ্য নেই তাদের পাশে এগিয়ে আসে নানা সংগঠন, বিত্তশালীরাও।বেসরকারি সংস্থাগুলো নাগরিকদের কাছ থেকে ডোনেশন সংগ্রহ করে, সেগুলো বিতরন করে স্বল্প আয়ের  সাধারন নাগরিকদের মধ্যে। কেবল বেসরকারি সংস্থাই নয়, রাজনৈতিক দল, জনপ্রতিনিধিরাও ডোনেশন সংগ্রহ এবং তা দরিদ্রদের মধ্যে বিতরনে সক্রিয় থাকেন এই সময়টা।

অন্টারিওর স্কারবোরো সাউথ্ওয়েস্ট এলাকা থেকে নির্বাচিত বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এমপিপি ডলি বেগম ডোনেশন সংগ্রহ বিতরনের ক্ষেত্রে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন। তিনি এবারের ছুটির মৌসুমে দরিদ্র মানুষের মধ্যে মেয়েদের স্যানিটারি সামগ্রী  বিতরনের উদ্যোগ নিয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তিনি ডেনফোর্থের সানভ্যালি মার্কেটর সামনে ডোনেশন গ্রহণ করেছেন।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোষ্ট দিয়ে তিনি সবাইকে জানিয়েছেন তিনি বাচ্চাদের বিভিন্ন  সামগ্রী এবং মেয়েদের স্যানিটারি  সামগ্রী অনুদান হিসেবে নিচ্ছেন।আগামী কাল শুক্রবার  তিনি ২২২৯ কিংস্টোন রোডের  স্কারবোরো ফুড সিকিউরিটি ইনিশিয়েটিভ (এসএফএসআই)  ফুডব্যাংকের সামনে  ডোনেশন সংগ্রহ করবেন।

ডলি বেগমের পোষ্টটি নিজের ওয়ালে শেয়ার করে আইনজীবী ব্যারিষ্টার রিজ্ওয়ান রহমান লিখেছেন অস্বস্তিকর ভেবে অনেকেই ফেমিনিন হাইজিন প্রোডাক্ট চাইতে পারেননা। আবার আমরা যখন কোথাও কিছু ডোনেট করি, তখনো সাধারণত পোষাক অথবা বড়দের খাবারের কথাই মাথায় আসে, আর সেটাই ডোনেট করি। কিন্তু শিশুদের খাবার আর ফেমিনিন হাইজিন প্রোডাক্টও তো খুবই জরুরী। তাই সামর্থবান বন্ধুদের কাছে অনুরোধ, যদি পারেন আগামীকাল ডলির এই ডোনেশন ড্রাইভে ছোট একটা প্যাকেট প্রোডাক্ট ডোনেট করে যাবেন। ডোনেশন সংগ্রহের জন্য ওরা নিচের ঠিকানায়, কিংস্টন রোডের একদম পাশেই Scarborough Food Security Initiative - SFSI আফিসের সামনে দাঁড়াবে।

ফেমিনিন হাইজিন প্রোডাক্ট অনুদান হিসেবে সংগ্রহ এবং দরিদ্রদের মধ্যে বিতরনের ডলি বেগমের এই উদ্যোগ নি:সন্দেহে ব্যতিক্রমী। কানাডাসহ পশ্চিমের নানা দেশেই এখন ’মিনুস্ট্রুয়্যাল ইকুইটি’ নিয়ে কথাবার্তা হচ্ছে। কানাডার বেশ কয়েকটি সংগঠন এ ব্যাপারে সোচ্চার রয়েছে। ‘মিনুস্ট্রুয়্যাল ইকুইটি’ আন্দোলনের অন্যতম একটি দাবি হচ্ছে ফেমিনিন হাইজিন সামগ্রী সহজলভ্য করা।

 ডলি বেগমের এই উদ্যোগকে আমরা  স্বাগত জানাই। যাদের সামর্থ্য আছে  তারা প্রত্যেকেই ছোটোখাটো হলেও ফেমিনিন হাইজিন প্রোডাক্টের একটি প্যাকেট ডলির ডোনেশন ক্যাম্পে পৌঁছে দিতে পারেন। ফেমিনিন হাইজিন প্রোডাক্ট ডোনেশন দেয়াটা কেবল কাউকে সহায়তা করাই নয়- বিশ্বব্যাপী নারীদের সমতার আন্দোলনেও সমর্থন দেয়া।

লেখক: শওগাত আলী সাগর, নতুনদেশ এর প্রধান সম্পাদক।


Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান