তিন মাতালের কান্ড: আশা জাগানিয়া নাটক

Sun, Sep 15, 2019 9:31 AM

তিন মাতালের কান্ড: আশা জাগানিয়া নাটক

নাহিদ কবির: টরন্টোর সাংস্কৃতিক অংগনে আমি দীর্ঘদিন সেচ্ছা নির্বাসনে আছি । সুব্রত পুরু  যখনই কোন অনুষ্ঠান করেন একটি ফোন সবসময় করেন দিদি আইসেন কইলাম । সেই ডাক ফেরানো যায় না । এবারও তাই। সুব্রত পুরুর  ফোন পেয়ে গেলাম দেখতে “তিন মাতালের কান্ড “। রচনা নির্দেশনা পুরু নিজে ।

জানি আমার প্রিয় দাদা শেখর গোমজও আছেন এই নাটকে । যেমন আবৃত্তি , তেমনি অভিনয়ে পারদর্শী তিনি । ছিলেন  অনুপ সেনগুপ্ত ,দীলিপ দাস , অরুনথিয়া , আবদুর রহমান আরিফ , মুক্তি প্রসাদ, সজীব চৌধুরী, সুভাষ দাস সহ আরো কলাকুশলীরা । নির্ধারিত সময়ের একটু পরে নাটক শুরু হয় । এই ছোট ত্রুটি ছাড়া আর কোন দোষ আমার চোখে পড়েনি । তাও এই দেরীর কারণ কলা কুশলীদের উপর ছিল সকল দায়িত্ব।  চেয়ার টানা থেকে শুরু করে কী করেননি তাঁরা ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা  করেন বাংলাদেশ টিভির  সাবেক সংবাদ পাঠিকা আসমা আহমেদ মাসুদ ।

এক কথায় সম সাময়িক রাজনীতি , অনিয়ম , ধর্ম নিয়ে বিভাজন কী উঠে আসেনি এই তিন মাতালের প্রলাপে। এগুলো কী সত্যি প্রলাপ ? না কী সুব্রত পুরু সব সত্য গুলোই মাতালের মুখ দিতেই বলিয়ে নিলেন । সুস্থ মানুষ বললে , কে জানে কে পড়বে ক্রস ফায়ারে কিংবা কোন চ্যানেল একুশে টিভির মত রোষানলে পড়ে বন্ধ হয়ে যাবে ।

চমৎকার ছিল টক শো পর্ব । মনে হল যেন এই যে সেদিন ৭১ এ দেখছিলাম পরিবহন নেতা প্রাক্তন মন্ত্রী শাহজাহান খান কী প্রতাপে মিশুক মুনির তারেক মাসুদের মৃত্যু জাস্টিফাই  করলেন, জাস্টিফাই  করলেন ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও পরিবহন ধর্মঘট ডেকে দেশ অচল করে দিতে পারেন । আরিফ ভাইর চেয়ারে আমি শাহজাহান খানকে দেখতে পেলাম ।

 

সবকিছুর পরেও মাতালেরাও নতুন ভোরের স্বপ্ন দেখে , আশা করে বিবেক জেগে উঠবে আবার । এখনো স্বপ্ন দেখায় সলীল চৌধুরীর গান । প্রজাপতির মত অবুঝ শিশুরা আবার সুন্দর দিন ফিরিয়ে আনবে সেই প্রত্যাশায় শেষ হয় একটি  ত্রুটিমুক্ত  নাটক । সৌখিন নয় প্রতিটি শিল্পী ছিলেন শক্তিশালী । ছিলনা ভাড়ামো । চমৎকার জীবন বোধের গানে মন ভরালেন সুভাষ দাস,  সাথে  সজীব চৌধুরীর  তবলা , মামুন কায়সারের কী বোর্ড , অমিতাভ দার সেতার ছিল অনন্য । চমৎকার সাউন্ড  সিস্টেম এ সুমন দা। আবারও ধন্যবাদ  সুব্রত পুরু ।  অচলায়তন ভাঙবে নিশ্চই , জাগবে মানুষ ।

লেখকের ফেসবুক থেকে


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান