আমি কেন আবার আওয়ামী লীগকে ভোট দিব?

Mon, Nov 26, 2018 3:27 AM

আমি কেন আবার আওয়ামী লীগকে ভোট দিব?

ইমতিয়াজ মাহমুদ: (১)  যারা আমাকে আওয়ামী লীগে ভোট দেওয়ার জন্যে বা আওয়ামী লীগকে সমর্থন করার জন্যে বা আওয়ামী লীগের বিরোধিতা না করার জন্যে অনুরোধ করেন, ওরা একটা বিচিত্র কথা বলেন। বলে কিনা, বিএনপি আরও খারাপ- সারোয়ার এটাকে সংক্ষিপ্ত রূপ দিয়েছেন, 'বিঃ আঃ খাঃ'।

 

আপনি যদি ওদেরকে জিজ্ঞাসা করেন, যারা বিনা বিচারে মানুষ হত্যা করেছে আপনি ওদেরকে ভোট দিবেন? ওরা জবাব দিবেন, না, ঐ কাজটা একটু খারাপ হয়ে গেছে, কিন্তু 'বিঃ আঃ খাঃ'। আপনি যদি বলেন যে দেশে তো এখন কথা বলার পরিস্থিতি নাই, কেবল মাত্র মতো প্রকাশের জন্যে শহিদুল আলম জেল খেটেছে, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক জেলে খেটেছে, ব্লগাররা প্রাণ দিয়েছে, এটা কি আওয়ামী লীগের ব্যার্থতা নয়? জুলুম নয়? ওরা তখন মিনমিন করে বলবেন যে, হ্যাঁ, এইগুলি একটু ইয়ে হয়েছে, বুঝেন তো রাষ্ট্র চালাতে গেলে ইত্যাদি, তবে 'বিঃ আঃ খাঃ'। আপনি আওয়ামী লীগের যত ব্যর্থতা অন্যায় বা অত্যাচারী দেখান, ওরা সেটাকে সেইভাবে অস্বীকার হয়তো করবেন না, কিন্তু যুক্তি একটাই, 'বিঃ আঃ খাঃ'।

আপনি যদি ওদেরকে বলেন যে, এই যে পাহাড়ে এতো অন্যায় হচ্ছে, অত্যাচার হচ্ছে, এটা কি সরকারের ব্যর্থতা নয়? ওরা সেই একই জবাব দিবে, 'বিঃ আঃ খাঃ'। আমি যখন বলি গত কয়েক বছরে ছাত্র ইউনিয়নের ছেলেমেয়েদের উপর ছাত্রলীগ কতবার হামলা করেছে, পুলিশ লাঠিপেটা করেছে, এটা অন্যায় নয়? জবাব একটাই- 'বিঃ আঃ খাঃ'। ধর্ষণ বেড়েছে, জবাব 'বিঃ আঃ খাঃ'। সন্ত্রাস বেড়েছে, জবাব 'বিঃ আঃ খাঃ'। দুর্নীতি বেড়েছে, জবাব 'বিঃ আঃ খাঃ'।

বুঝলাম 'বিঃ আঃ খাঃ'। এইখানে আমি আপনার সাথে একমত। বিএনপিকে আমি এমনিতেই ভোট দিব না বা সমর্থন করবো না। ঠিক আছে সেটা। কিন্তু আপনি তো মানছেন যে আওয়ামী লীগও মন্দ কাজ করেছে, আওয়ামী লীগও অন্যায় করেছে। কেবল বলছেন 'বিঃ আঃ খাঃ' আর আওয়ামী লীগ কম খারাপ। তো ভাই, আওয়ামী লীগ যখন এই খারাপ কাজগুলি করেছে আপনি কি তার প্রতিবাদ করেছেন? না, করেননি। এখন না হয় ভোটের সময়, কিন্তু যখন ভোটের সময় ছিল না, তখন প্রতিবাদ করলেন না কেনে? তখন কেন বললেন না যে লোকজনকে কথা বলতে দিতে হবে, সভা সমিতি করতে দিতে হবে, মিটিং মিছিল করতে দিতে হবে। তখন আপনার লম্বা শানিত জিহ্বাটা কোথায় ছিল?

 

(২) টেকনাফের একরামকে গুলি করে মেরে ফেললো। অডিও ক্লিপটা আপনিও শুনেছেন। আপনি তখন মুখ খুলে প্রতিবাদ করলেন না কেন? লম্বা জিহ্বাটা তখন কোন গর্তে ঢুকিয়ে রেখেছিলেন? কোথা যে বলতে জানেন না তা তো নয়। আমি তো প্রতিদিনই দেখছি ফেসবুকে আর আড্ডায় কি নিপুণ দক্ষতায় ডঃ কামাল হোসেনকে, সুশীল সমাজকে ধোলাই দিচ্ছেন। এই দক্ষতাটা তখন দেখাননি কেন?

 

আপনি প্রতিবাদ করলে কি হতো? এইসব অন্যায় অত্যাচার বন্ধ হতো? হ্যাঁ। বন্ধ হতো। কিভাবে? সরকারের বিরোধীরা যখন সমালোচনা করে বা প্রতিবাদ করে সরকার তখন খুব বেশী গুরুত্ব দেয় না। কেননা যারা আমার শত্রু ওরা তো এমনেও আমাকে ভোট দেবে না, অমনিও দেবে না। সুতরাং ওদের সমালোচনা শুনে কি লাভ। কিন্তু আপনারা যারা সরকারের পরীক্ষিত সমর্থক আপনারা সমালোচনা করলে বা প্রতিবাদ করলে সরকার গুরুত্ব দিত। ভাবতো যে, আরে, আমার পাঁড় সমর্থকই তো বিগড়ে যাচ্ছে। তখন একটা কিছু করতো। একরামকে তো মেরেই ফেলেছে, অন্তত যারা একরামকে মেরেছে ওদের হয়তো বিচারটা হতো।

আপনারা প্রতিবাদটা না করায় এখন কি হয়েছে? এখন তো সরকারী দল বৈধভাবেই ধরে নিবে যে আমরা যত কিছুই করি না কেন, আমাদের এই সমর্থকগুলি- 'বিঃ আঃ খাঃ'র দল- এরা কোন অবস্থাতেই আমার বিপক্ষে যাবে না। ফলাফল কি? ফলাফল হচ্ছে যেসব কাজের জন্যে আমরা আওয়ামী লীগকে সমালোচনা করছি সেগুলি ওরা করতেই থাকবে করতেই থাকবে। এমনিতে তো ছবির হাট ভেঙেছে, পহেলা বৈশাখ সংকুচিত করেছে- এরপর যদি আবার ওরা জিতে আসে তখন আপনার সকল কর্মকাণ্ডকে ওরা নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসবে। হেফাজত সেন্সর করবে আপনি ফেসবুকে কি পণ্ডিতি করবেন আর কি করবেন না। ট্যাঁ ফো করবেন তো টুঁটি চেপে ধরবে।

 

তাইলে আমি কেন আবার আওয়ামী লীগকে ভোট দিব? তাইলে আমি কেন চাইবো যে আওয়ামী লীগ আবার জিতে আসুক। বুঝলাম 'বিঃ আঃ খাঃ', কিন্তু আওয়ামী লীগ আবার জিতে আসা মানে তো নিবর্তনমূলক আইনগুলির নৈতিক বৈধতা দিলেন। ওদেরকে আবার জিততে দেওয়া মানে তো হচ্ছে ঐ যে কথায় কথায় কণ্ঠরোধ করা, সেটাকে জায়েজ করে দেওয়া। ভাই আমি তো স্বাধীনতার পক্ষে, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে আর বঙ্গবন্ধুর পক্ষে আর সেকারণেই আমি লিবার্টির পক্ষে। লিবার্টির পক্ষে।

(৩)

আমার দুই কন্যাকে আমি লিবার্টির কথা বলতে বলতে ওদের কান ঝালাপালা করে ফেলেছি। আমি ওদেরকে বলি যে আমার চরম শত্রু বা পরম বন্ধু যেই হোক, সকলের অধিকার আছে স্বাধীনভাবে কথা বলার, স্বাধীনভাবে চলার, মুক্ত জীবনযাপন করার। ওরা তো একরামের হত্যাকাণ্ডের খবরও দেখেছে আর শহিদুল আলমের কথা তো জানেই আরকি। এখন ওরা যদি আমাকে প্রশ্ন করে, পাপা, তুমি এতো লিবার্টি লিবার্টি কর, তুমি কি করে...। আমি কি জবাব দিব? নিজের সন্তানের কাছে ছোট হবো? না ভাই। আমাকে মাফ করবেন। আমি জানি 'বিঃ আঃ খাঃ', কিন্তু আমি বরং আমার সীমিত সামর্থ্যের মধ্যে লিবার্টির পক্ষে লড়বো, স্বেচ্ছাচার অত্যাচারের প্রতিবাদ করবো।

 

গতকাল আমার বড় মেয়ের সাথে কথা হচ্ছিল ম্যাসেঞ্জারে। সে তার ক্লাসের কাজ নিয়ে হিমসিম খাচ্ছে। ওকে একটা প্রবন্ধ লিখতে হবে, বিষয় হচ্ছে ডেমোক্রেসি আর লিবার্টির মধ্যে কম্প্যাটিবিলিটি ইত্যাদি। মেয়ে মিল পড়েছে, আরও কি কি সব পড়েছে, এখন সে নিজের অবস্থান নির্ধারণ করে একটা বক্তব্য উপস্থাপন করতে গিয়ে কনফিউজড হয়ে যাচ্ছে। ভয় পাচ্ছে, পাছে ফেল না করে বসে। আমি আমার মেয়েকে কৃষ্ণ আর অর্জুনের সংলাপের সূত্র ধরে বুঝাচ্ছিলাম, তোমার কাজটা তুমি করে যাও, ফলাফল যাই হোক সে নিয়ে চিন্তা কর না। তিরিশ সেকেন্ড আমার কথা শুনে মেয়ে বলে কিনা, বাবা, এই কথা তুমি আমাকে এর আগে কতবার বলেছ, এখন আবার এতো ডিটেইলে বোলার কি আছে।

তাইলে আমার করনীয় কি? আপনি দাসের মতো অন্ধ আনুগত্যে নৌকায় ভোট দেন গিয়া। আপনার যদি মনে হয় নৌকা জেতা মানেই দেশের মুক্তি মানুষের মুক্তি- আমি আর আপনাকে কি বুঝাব? আমি তো কাস্তে মার্কায় ভোট দিব, আর কাস্তের হয়ে প্রচারণা চালাবো। কাস্তে ফেল করবে? জামানত বাজেয়াপ্ত হবে? হোক। তবুও কাস্তের হয়ে কাজ করতে হবে। কেন?

 

(৪) কারণ সিপিবি এবং ওদের জোটটা শক্তিশালী হওয়া দরকার। ওদের পক্ষে যত বেশী ভোট পড়বে, ততোই আওয়ামী লীগ বিএনপি শঙ্কিত হবে। আমরা যদি একটা মোটামুটি বড় শক্তি হিসাবেও সিপিবি ও এদের জোটকে দাড় করাতে পারি, তাইলে দুইটা কাজ হবে। প্রথমত বাকি সকলের মধ্যে এই ধারনাটা আসবে যে ওরা সেক্যুলার লিবারেল ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোকদের অপরিহার্য পছন্দ না। এইসব লোকের আরেকটা জায়গা আছে ভোট দেওয়ার। সুতরাং ভোট হারানোর ভয়ে হলেও ঐসব ফালতু কাজ থেকে বিরত থাকবে। দ্বিতীয়ত, মানুষের কাছে বিকল্প উপস্থাপন করা যাবে, আপনাকে তখন আর 'বিঃ আঃ খাঃ'র আশ্রয় নিতে হবে না। কম মন্দ বেশী মন্দের মধ্যে পছন্দ করতে হবে না।

 

সুতরাং আপনি থাকেন আপনার 'বিঃ আঃ খাঃ' নিয়ে। আমি চললাম কাস্তের পক্ষে। সকলকে জোড় হাত করে বলবো, আপনার এলাকায় কাস্তের প্রার্থী থাকলে কাস্তেতে ভোট দেন। কাস্তের পক্ষে ক্যাম্পেইন করেন। ওদেরকে দুই চার টাকা চাঁদা দেন। কাস্তের বাক্সে একটা বাড়তি ভোট মানে হচ্ছে লিবার্টির পক্ষে আরেকটি কণ্ঠ যুক্ত হওয়া, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে আরেকটি সৈন্য যুক্ত হওয়া, মুক্তি মিছিলটা আরেকটু দীর্ঘ হওয়া। এইটা না করে আপনি যদি ঐ 'বিঃ আঃ খাঃ' মেনে নৌকায় ভোট দেন বা আওয়ামী লীগের উপর রাগ করে বিএনপিতে ভোট দেন, তাইলে আপনি দেশের ক্ষতি করবেন, ভবিষ্যৎ প্রজন্মের ক্ষতি করবেন।

 

এইটা আমার চিন্তা। যারা 'যে কোন অবস্থায় নৌকায়' ওদের কাছে আমার খুব বেশী প্রত্যাশা নাই। কিন্তু যারা এমনিতে সভ্য লিবারেল সেক্যুলার মানুষ কিন্তু কেবল 'বিঃ আঃ খাঃ' ভেবে নৌকায় ভোট দিতে চাইছেন, আপনাদের কাছে আমার প্রত্যাশা অনেক।


Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান