দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকার প্রতিবাদ

Sat, Nov 17, 2018 11:13 PM

দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকার প্রতিবাদ

নতুনদেশ ডটকম: সদ্য গঠিত ‘আর্ট কোয়েষ্ট কানাডা’ নামে চিত্রশিল্পীদের সংগঠনের চিত্র প্রদর্শণীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সংগঠনের সভাপতির দেয়া কিছু বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকা ।

 

এক বিবৃতিতে আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকা বলেছে, ১০ নভেম্বর ২০১৮ স্কারবোরোতে “আর্ট কোয়েষ্ট কানাডা” গ্রুপের সভাপতি ইফতেখার উদ্দিন আহমেদ তার বক্তব্যে, “দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকা”কে নিয়ে তার মনগড়া যে বক্তব্য দিয়েছেন আমরা তার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই। ইফতেখার উদ্দিন আহমেদ তার বক্তব্যে বলেছেন দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকা ভেঙ্গে গেছে। এই কথাটি সম্পূর্ন মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকা এখনো সচল এবং সংগঠনটি নিজস্ব গতি নিয়েই কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকা একটি রেজিষ্টার্ড ও ননপ্রফিট সংগঠন। দীর্ঘ ৮ বছর সংগঠনটি সুনামের সাথে কমিউনিটির সাহায্য ও সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। ২০১০ সালে প্রতিষ্ঠা লাভের পর থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ১৭ টি গ্রুপ চিত্রপ্রদর্শণী, ৫টি শিশু-কিশোর আর্ট কম্পিটিশন, পুরস্কার বিতরণী ছাড়াও বাংলাদেশ হাইকমিশনের অনুরোধে টরন্টোতে জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে আর্ট কম্পিটিশনের আয়োজন করে যাচ্ছে নিয়মিত। তাছাড়াও সংগঠনটির সদস্যরা কমিউনিটির বিভিন্ন অর্গানাইজেশন আয়োজিত আর্ট কম্পিটিশনে বিচারকের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন সুনামের সহিত।

 

বিবৃতিতে বলা হয়, ইফতেখার উদ্দিন আহমেদ দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকা সংগঠনটির দুইবার প্রেসিডেন্ট ছিলেন। প্রথম মেয়াদে প্রেসিডেন্ট থাকাকালিন সময়ে ৩ জন জেনারেল সেক্রেটারি তার সাথে কাজ করতে অপরাগতা জানিয়ে পদত্যাগ করেন। ২য় মেয়াদেও একই আবস্থার  সম্মুখীন হয় সংগঠনটি। ইফতেখার উদ্দিন আহমেদ প্রেসিডেন্ট থাকাকালিন সময়ে দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকা সংগঠনটি বেশ কিছু প্রদর্শনীর আয়োজন করে ও কয়েকটি প্রদর্শনীতে অংশগ্রহন করে। সংগঠনটির সদস্যরা তার কাছে আয় ব্যয়ের হিসাব দাখিল করা ও টেক্স রিটার্ন করা নিয়ে বারবার অনুরোধ করে। একারণে তার সাথে সংগঠনটির সম্পর্কের অবনতি হয়। সংগঠনটি বার বার তার নিকট হিসাব চেয়েও ব্যর্থ হয়। এক পর্যায়ে তিনি লিখিত ভাবে পদত্যাগ করেন হিসাব ছাড়াই এবং তিনি তার অপারগতা শিকার করে নেন। 

 

বিবৃতিতে বলা হয়, গত ১০ নভেম্বর  তিনি তার বক্তব্যে আমাদের বাঙ্গালি কমিউনিটিকে কটাক্ষ করে কথা বলেন। তিনি উপস্থিত দর্শকদের সামনে বলেন, “এখানে উপস্থিত সকলে বাঙালি, তারপরে দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকার প্রসঙ্গ এনে বলেন, বাঙালিরা বেশীক্ষণ একসাথে থাকতে পারেনা”। আমরা এই কথারও প্রতিবাদ জানাই। ইফতেখার উদ্দিন আহমেদ এইদেশে আমাদের কমিউনিটিকে হেয় করেছেন। আমরা জানাতে চাই বাঙালি নয় তার অনভিপ্রেত ব্যবহারের জন্য সংগঠনটির অনেক সদস্য সংগঠনটি ছেড়েছে যার প্রমাণ আছে।

 

বিবৃতিতে বলা হয়, এরপরও সংগঠনটি চলছে, কিন্তু দুখের বিষয় তিনি বহুবার চেষ্টা করেছিলেন সংগঠনটি ভাঙ্গতে কিন্তু পারেননি। বর্তমানে তার দলের এক সদস্য দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকার ট্রেজারারের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। যার কাছ থেকেও সংগঠনটি বারবার চেষ্টা করেও হিসাব বুঝে নিতে পারেনি। সে বিভিন্ন সময়ে হিসাব দাখিলের কথা বলেও দেয়নি। এখন দেখছি সেও ইফতেখার উদ্দিন আহমেদের নতুন দলটির সদস্য। তাহলে আমাদের এই কমিউনিটি তার ও তার গ্রুপের কাছ থেকে কি পাবে? এটা বুঝার দায়িত্ব কমিউনিটির হাতে দিতে চায় দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকা।

 

বিবৃতিতে বলা হয়, এমতঅবস্থায় আমরা আবারো আপনাকে জানাতে চাই, দি বাংলাদেশ আর্ট সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকা ছিল, আছে এবং থাকবে। পরনিন্দা ও পরচর্চা করে নিজেকে কেউ বড় করতে পারেনা। বিজ্ঞপ্তি।


Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান