আপনারা দুই দলই তো তাইলে দাস- দাসস্য দাস

Sat, Oct 20, 2018 1:07 AM

আপনারা দুই দলই তো তাইলে দাস- দাসস্য দাস

ইমতিয়াজ মাহমুদ: একজন বিত্তবান লোক, সমাজে এর বিপুল প্রভাব প্রতিপত্তি, যার পিতাও একজন বিখ্যাত লোক ছিলেন- এইরকম এক ব্যাটা একটি নারীকে চরিত্রহীন বলে গালি দিয়েছে টেলিভিশনে টক শো চলার সময়। গালিটি সম্পূর্ণ অপ্রাসঙ্গিকভাবে দেওয়া। নারী সাংবাদিক মাসুদা ভাট্টি নিজে এর প্রতিবাদ করেছেন, সাথে অন্য অনেকেই প্রতিবাদ করেছেন। একদল নারী সাংবাদিক সাথে নারী মানবাধিকার কর্মী এক্টিভিস্ট এরাও রয়েছেন, ওরা অনুষ্ঠান করে প্রতিবাদ করেছেন, দাবী করেছেন যে মইনুল হোসেনকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে নাইলে আইনি পদক্ষেপ নেবেন ইত্যাদি। এর মধ্যে মইনুল হোসেন মাসুদা ভাট্টিকে ফোন করে দুঃখ প্রকাশ করেছেন, আর দুঃখ প্রকাশ করে একটা চিঠিও পাঠিয়েছেন সেই অনুষ্ঠানের উপস্থাপকের কাছে। এর মধ্যে মেয়েদের প্রতিবাদ চলছেই।

 

এর মধ্যে বিস্ময়ের সাথে গত দুই তিন দিন ধরে লক্ষ করেছি যে আমার বন্ধুদের মধ্যে কয়েকজন বেশ কায়দা করে মেয়েদের এই প্রতিবাদটি নিয়ে কটু কথা বলছেন। না, সকলেই কটু কথা বলছেন না, কিন্তু কেউ হালকা কেউ মৃদু কেউ কড়া নানারকম ভাষায় এই প্রতিবাদটির বিরোধ করছেন। এর ঠিক মইনুল হোসেনকে যে সমর্থন করছেন তা নয়। এদের নানারকম কথা। কেউ বলছেন নারীকে নিয়ে এর চেয়ে খারাপ কথা তো এর আগেও অনেকে বলেছে, তখন আপনারা কি করেছেন। কেউ বলছেন এটাকে 'আওয়ামী নারীবাদ' কেননা এরা ৫৭ ধারা ইত্যাদির প্রতিবাদ কেন করছেন না। একজন অতি জনপ্রিয় ফেসবুক সেলিব্রিটি আবার প্রশ্ন করেছেন যে কোটা আন্দোলন ও নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের সময় এই একশ একজন নারী সাংবাদিক কোথায় ছিলেন ইত্যাদি।

 

তরুণ বন্ধুরা, আমাকে একটা কথা একটু বুঝিয়ে বলেন। একজন নারীকে মইনুল হোসেন টেলিভিশনে গালি দিল। চরিত্রহীন বলে গালি দিল। কাজটা কি ন্যায় হয়েছে না অন্যায় হয়েছে? কাজটা অবশ্যই অন্যায় হয়েছে। এর প্রতিবাদ করবেন না আপনি? করতেই পারেন। আপনি যদি এর আগে ঘটে যাওয়া বড় কোন অন্যায়ে প্রতিবাদ না করে থাকেন তাইলে কি এই অন্যায়টির প্রতিবাদ করার অধিকার আপনার নাই? অথবা ধরেন আপনি যদি ঘোরতর আওয়ামী লীগ সমর্থক হয়ে থাকেন তাইলে কি আপনার প্রতিবাদটি খারিজ হয়ে যাবে? অথবা ধরেন আপনি যদি কোটা আন্দোলন বা নিরাপদ সড়ক আন্দোলন সমর্থন না করে থাকেন তাইলে কি আপনার প্রতিবাদটি অবৈধ হয়ে যাবে? আমার এইসব বুদ্ধিমান বন্ধুরা কি বলছেন সে কি আপনারা বুঝতে পারছেন?

 

(২)

এ এক অদ্ভুত ব্যাধি হয়েছে আমাদের সমাজে। আমাদের এখানে আপাতদৃষ্টিতে বুদ্ধিমান মনে হয় এরকম লোকেরাও ন্যায় অন্যায় নির্ধারণ করেন দলাদলির হিসাব কষে। দলাদলিটা কি? মোটা দাগে আমাদের এখানে দলাদলি হচ্ছে আওয়ামী লীগ- আওয়ামী লীগের পক্ষে আর বিপক্ষে। আমরা সাধারণত আওয়ামী লীগের পক্ষের অন্ধগুলিকে দলদাস বলে হাসি ঠাট্টা করি বটে, কিন্তু আওয়ামী লীগ বিরোধী একদল আছে এরাও ঐ দলদাসদের মতোই একই মাপের বুদ্ধিবৃত্তিক দাসত্বের শৃঙ্খলে আবদ্ধ। এরাও দেখবেন যে যে কোন অবস্থাতেই আওয়ামী লীগের বিরোধিতা করবেই করবে।এইটা কি রে ভাই?

 

আপনি আওয়ামী লীগ সমর্থন করেন না, সে তো হতেই পারে। বিশেষ করে এখন, গত কয়েক বছর ধরে সরকারে থেকে আওয়ামী লীগ যেভাবে মানুষের কথা বলার অধিকার খর্ব করেছে, এখন তো সাধারণভাবে আওয়ামী লীগকে সমর্থন না করাটাই স্বাভাবিক। কিন্তু তার মানে কি আপনি যে কোন অবস্থায় যে কোন পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগ যা করবে তার বিরোধিতা করবেন? আওয়ামী লীগ সরকারে গিয়ে রাজাকারদের বিচারের ব্যাবস্থা করেছে। আমি তার বিরোধিতা করেছি? করিনি। কেননা সেটা একটা সমর্থনযোগ্য কাজ হয়েছে। আবার আওয়ামী লীগ যখন ৫৭ ধারা চালিয়েছে এখন আরও কঠিন বাজে আইন করেছে মানুষের কণ্ঠ রোধ করার জন্যে আমি কি এর বিরোধিতা করবো না? অবশ্যই করবো।

 

আমি কেন দলদাসে পরিণত হবো? যে কাজটা অন্যায় সেটাকে কেন আমি মুক্তকণ্ঠে অন্যায় বলবো না? যারা অন্যায়ের প্রতিবাদ করছেন, তাদের দলীয় পরিচয় বা রাজনৈতিক মতাদর্শের কারণে কেন আমি তাদের প্রতিবাদটা নিয়ে হাসি ঠাট্টা করবো? আপনারা দুই দলই তো তাইলে দাস- দাসস্য দাস। এটা তো আমি প্রতিদিনই দেখতে পাই। এই ফেসবুকেই। আমার অনেক পোস্ট মাঝে মাঝেই আওয়ামী লীগের পক্ষে যায়। বঙ্গবন্ধু প্রসঙ্গে আমার একরকম বুনো ভালোবাসা আছে। এইসব কারণে মাঝে মাঝেই আমি দেখি কিছু লোকজন চিড়চিড়ে ধরনের মন্তব্য করেন। 'ভাই কি আওয়ামী লীগে যোগ দিলেন নাকি' বা 'আওয়ামী লীগের দালালী শুরু করলেন নাকি' ইত্যাদি।

 

(৩)

আপনি ঐসব জাসদ ফাসদ বা মাওবাদী ওদের কথা বাদ দেন। ওদের আওয়ামী লীগ বিরোধিতার মাত্রা যে কি লেভেলের সে তো আমরা জানিী। এরা পারলে মুক্তিযুদ্ধকে প্রশ্ন করে আওয়ামী লীগ আর বঙ্গবন্ধু বিরোধিতার জন্যে। কিন্তু যাদেরকে আমরা বুদ্ধিমান মনে করি এবং যাদের উপর আমাদের অগাধ আস্থা এদের মদহ্যেও যখন এইরকম প্রবনন্তা দেখি তখন কেমন লাগে? ছাত্র ইউনিয়নের প্রেসিডেন্ট ছিলেন বাকি বিল্লাহ, আমার খুবই পছন্দের তরুণ সংগ্রামী নেতা, তিনি নিজেও দেখলাম একবার আমার মুজিব কোট নিয়ে নাকি মুজিব কোট পরা ছবি নিয়ে খোঁচা মারছেন। এইটা কি রে ভাই?

 

এইরকম অন্ধ পক্ষপাতিত্ব বা অন্ধ বিরোধিতার সমস্যাটা কি? সমস্যা হচ্ছে যে আপনি আপনার বুদ্ধিবৃত্তিক স্বাধীনতা নিজেই খর্ব করছেন। আপনার ন্যায় অন্যায় বোধ দলাদলির কাছে হেরে যাচ্ছে। কম কোট একটা পরি। নানান রঙের কোটের সাথে এক পিস মুজিব কোটও আমার আছে। এইটা নিয়ে খোঁচা দেওয়াতে বাকি বিল্লাহর প্রতি আমার শ্রদ্ধা তো খানিকটা কমেছেই। আরে ভাই, মত পার্থক্য তো আপনার সাথে আমার হবেই, আবার কোন ইস্যুতে মতের মিলও হবে। তাই বলে পোশাক নিয়ে খোঁচা? কিন্তু সেই সাথে আবার এইটাও আমাকে মনে রাখতে হবে যে মুজিব কোট নিয়ে বাকি বিল্লাহর এলারজি থাকলে থাকুক, কিন্তু তিনি আমাকে একবার খোঁচা দিয়েছেন বলে সারা জীবন সব ইস্যুতে বাকির সব কথা তো আর ভুল হয়ে যাবে না।

 

এইরকম অন্ধ পক্ষপাতিত্ব বা অন্ধ বিরোধিতার সমস্যাটা কি? সমস্যা হচ্ছে যে আপনি আপনার বুদ্ধিবৃত্তিক স্বাধীনতা নিজেই খর্ব করছেন। আপনার ন্যায় অন্যায় বোধ দলাদলির কাছে হেরে যাচ্ছে। আপনি নিজেই নিজের স্বাধীন চিন্তার পথকে কিছু অনাবশ্যক প্রতিবন্ধকতা দিয়ে আটকে দিচ্ছেন।


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান