দুর্নীতির অভিযোগ সম্পর্কে যা বললেন সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা

Sun, Sep 23, 2018 10:41 AM

দুর্নীতির অভিযোগ সম্পর্কে যা বললেন সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা

নতুনদেশ ডটকম: সাবেক বিচারপতি এস কে সিনহা তার বিরুদ্ধে আনা দুর্নীতির অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে বলেছেন, ষোড়শ সংশোধনীর রায়ের আগ পর্যন্ত আমার বিরুদ্ধে দুর্নীতির কোনো অভিযোগ ওঠেনি। তখন পর্যন্ত তো আমি ভালো  প্রধান বিচারপতি ছিলাম। এই রায়ের পর থেকেই দুর্নীতির অভিযোগ উঠতে থাকে।

তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ থাকলে সুপ্রীম জুডিশিয়াল কাউন্সিল করে বিচারের ব্যবস্থা করা হলো না কেন?  দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত ও বিচার করতে সরকার লজ্জা পায় কেন?

নিউইয়র্কের টাইম টেলিভিশনকে দেয়া এক একান্ত সাক্ষাতকারে সাবেক প্রধান বিচারপতি সিনহা সরকারের সঙ্গে তার টানাপড়েন, পদত্যাগ এবং দেশত্যাগ নিয়ে নিজের বক্তব্য তুলে ধরেন।  বিশিষ্ট সাংবাদিক সোহেল মাহমুদের নেয়া দীর্ঘ সাক্ষাতকারটি টাইম টেলিভিশন শনিবার রাতে প্রচার করেছে।

প্রসঙ্গত, সংবিধানের  ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে সাবেক বিচারপতি এস কে সিনহার সঙ্গে সরকারের টানাপড়েন সৃষ্টি হয় এবং এক পর্যায়ে তিনি দেশ ছেড়ে বিদেশে চলে যান এবং সেখান থেকেই  পদত্যাগ করেন। টাইম টেলিভিশনের সাক্ষাতকারে তিনি দাবি করেছেন, তাকে বিদেশে যেতে এবং পদত্যাগে বাধ্য করা হয়েছে।এই প্রসঙ্গে তিনি সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার(ডিজিএফআই) বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেন।

সাক্ষাতকারে সাংবাদিক সোহেল মাহমুদের প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে বিচারপতি সিনহা বলেন, ষোড়শ সংশোধনীর রায় সরকারের পক্ষে দেয়ার জন্য রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে তার উপর চাপ দেয়া হয়। কিন্তু আদালত সেই চাপ উপেক্ষা করে স্বাধীনভাবে রায় দেয়ার পরই দুর্নীতির অভিযোগসহ নানা ধরনের কথাবার্তা বলা শুরু হয।

সুপ্রীম কোর্টের বিচারপতিরা্ও তার বিরুদ্ধে দুর্নিতির অভিযোগ তুলে তার সঙ্গে আদালতে বসতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে- এই ব্যাপারে তার প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে বিচারপতি সিনহা বলেন, বিচারপতি ওয়াহাবের নেতৃত্বে  অন্যান্য বিচারপতিরা তার সাথে দেখা করে বলেছেন, রাষ্ট্রপতি তাদের কাছে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগের একটি ফিরিস্তি পাঠিয়েছেন। আমি বললাম- আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ অথচ আমিই জানি না। রাষ্ট্রপতির সাথে তো আমারও দেখা হয়েছে। আমাকে তো তিনি কিছু বলেন নি। পরে একজন বিচারপতিকে ফোন করে অভিযোগগুলো সম্পর্কে জানতে চাইরে ্ওই বিচারক কিছুই বলতে পারেননি।

বিচারপতি সিনহা বলেন, প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে অভিযোগের ফিরিস্তি রাষ্ট্রপতি অধ্বস্তন বিচারকদের হাতে তুলে দেন কিভাবে?

রাষ্ট্রপতি কি এটি করতে পারেন?- প্রশ্ন করা হলে সাবেক প্রধান বিচারপতি বলেন কিছুতেই তিন এটা করতে পারেন না। এটা সংবিধানের লংঘন।

বিচারপতি সিনহা বলেন, দুর্নীতির বিচার ত্বরান্বিত করার পথ সুগম করতে উচ্চতর আদালত থেকে আমিই রায় দিয়ে সাত দিনের মধ্যে বিচার করার ক্ষমতা দিয়েছি। আমার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ থাকলে সেটি তদন্ত করে এই সময়ের মধ্যেই বিচার করা যেতো।

তবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক রোববার নারায়নগঞ্জে বলেছেন, এস কে সিনহা যা বলছেন, তার সবই মিথ্যা। পদত্যাগের এক বছর পর এস কে সিনহা এখন নতুন গল্প ফেঁদেছেন।

তিনি বলেন,  ‘আরেকটি কথা হয়তো আসতে পারে, কেন দুর্নীতির অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা এখন পর্যন্ত হয়নি। আমরা কিন্তু সব সময় বলে আসছি, আইন সকলের ঊর্ধ্বে এবং তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। স্বাধীন দুর্নীতি দমন কমিশন সেটা খতিয়ে দেখছে। তারা যখন তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করবে, তখনই মামলা হবে। সেখানে সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করবে না।’

রোববার বিকেলে নারায়ণগঞ্জে জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যকরী কমিটির অভিষেক ও ডিজিটাল বার ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী এ সব কথা বলেন।


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান