ডালিয়া আহমেদের আবৃত্তি ও একজন আহমেদ হোসেন

Mon, May 14, 2018 11:13 PM

ডালিয়া আহমেদের আবৃত্তি ও একজন আহমেদ হোসেন

ফারহানা শান্তা: গতকাল সন্ধ্যায় ড্যানফোর্থের মিজান অডিটোরিয়ামে ঠিক সন্ধ্যা ৭-৩০টায় আহমেদ হোসেন হাতে মাইক্রোফোন নিয়ে ‘এক ডালি কবিতা’ শীর্ষক আবৃত্তি অনুষ্ঠানের প্রারম্ভে বাংলাদেশ থেকে আগত শিল্পী’র সংক্ষিপ্ত পরিচয় দিয়ে যখন বাচিক শিল্পী ডালিয়া আহমেদকে মঞ্চে আসন গ্রহণ করতে অনুরোধ করলেন তখন কি জানতাম যে পরবর্তী প্রায় আড়াই ঘণ্টা আমাদের জন্য এক অপার বিস্ময় অপেক্ষা করছে। বসেছিলাম সামনের দ্বিতীয় সারিতে । তখন আমরা মাত্র গোটা ত্রিশেক দর্শক, একটু হতাশ হলাম । যাক্ কি আর করা মনকে প্রবোধ দিলাম এই বলে যে, এটাতো কোন ধুম-ধারাক্কা অনুষ্টান নয় যে হল উপচিয়ে পড়া দর্শক হবে । তার উপর আবার একই দিনে শহরে রয়েছে আরো কয়েকটি অনুষ্ঠান এবং দক্ষিন এশীয় চলচ্চিত্র উৎসব।

শিল্পী বসলেন তার নির্ধারিত আসনে । বসেই আবৃত্তি শুরু করলেন কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘আমার মাথা নত করে দাও হে তোমার চরণ ধুলার তলে’ দিয়ে । কেমন যেন শিহরণ অনুভব করলাম । এতো আবৃত্তি নয়, যেন প্রানমন উজাড় করে দেয়া প্রার্থনা। তারপর শুরু হল বিরতিহীন আবৃত্তি, বাংলা এবং ইরেজীতে সমান দক্ষতায়। পিন পতন নিরবতা । ডালিয়া আহমেদ আবৃত্তি করেই চলেছেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম, সলিল চৌধুরী, আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ, আসাদ চৌধুরী, পূর্ণেন্দু পত্রী, নির্মলেন্দু গুণ, সুবোধ সরকার, জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, তারিক সুজাত ও মিলি চৌধুরীর কবিতা। আবৃত্তি শুনছি আর হচ্ছি অশ্রুসিক্ত, আনন্দে উচ্ছসিত, প্রতিবাদি, বা অন্ধ প্রেমিক । মাঝে এসে যোগ দিলেন শিল্পী কন্যা দামিনী । ইংরেজীতে আবৃত্তি যে এতো সুমধুর হতে পারে দামিনীর আবৃত্তি না শুনলে আমার অজানাই থেকে যেত ।

অনুষ্ঠানের মাঝে কৌতুহল বশতঃ একটু পিছন ফিরে তাকেই আমার পূর্বের ধারনাকে মিথ্যা প্রমানিত হতে দেখি কানায় কানায় হল ভর্তি দর্শক । আসন না পেয়ে দাঁড়ানো দর্শকদের লাইন হলের দরজার বাহির পর্যন্ত বিস্তৃত । অনেকে বাহির থেকে উঁকি-ঝুকি দিয়ে দেখার চেষ্টা করছে । মনটা খুব ভালো হয়ে গেল । এরই মাঝে শিল্পীর সঙ্গে মঞ্চে এসে আসন গ্রহণ করলেন রানা ঠাকুর, ডালিয়া আহমেদের জীবন সঙ্গী। করলেন তাদের যুগল পরিবেশনা । ডালিয়া আহমেদের যে কয়েকটি ইংরেজী কবিতা আবৃত্তি করেছেন তার মধ্যে বেশ কয়েকটি বাংলা থেকে ইংরেজীতে অনুবাদ করেছেন রানা ঠাকুর । লক্ষ্য করলাম দরবেশের বেশে সজ্জিত রানা ঠাকুরকে দিয়ে দর্শকদের মাঝে প্রবল কৌতুহল ।

রাত প্রায় দশটা । শিল্পী ঘোষনা করলেন এবার তার শেষ পরিবেশনা সঙ্গে থাকবেন দামিনী । আবারো মঞ্চে এলেন দামিনী । দামিনী আবৃত্তি করলেন সলিল চৌধুরীর একগুচ্ছ চাবি’র ইংরেজী ভাষান্তর, তারপরেই ডালিয়া আহমেদ আবৃত্তি করলেন মূল কবিতাটি । প্রায় আড়াই ঘন্টা দর্শকদের সম্মোহিত করে ডালিয়া আহমেদ যখন শেষ করলেন তার আবৃত্তি তখনও ঘোর কাটেনি দর্শকদের তাই তো মুহুর্মুহ হাত তালি দিতেও যেন কিছুটা বিলম্ব ।

পেছনের কথাঃ

যদিও অনুষ্ঠানটি হয়েছে অন্যথিয়েটার টরন্টো এবং অন্যস্বরের ব্যানারে কিন্তু আমরা যারা অন্যথিয়েটার টরন্টো এবং অন্যস্বরের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট খুব ভালো করে জানি যে এই আয়োজনের মূল পরিকল্পনা, উদ্যোক্তা আমাদেরই প্রিয় সাংস্কৃতিক সংগঠক, বাচিক শিল্পী আহমেদ হোসেন । আহমেদ হোসেনের জন্য-ই সম্ভব হয়েছে ডালিয়া আহমেদের মত উঁচু মাপের একজন শিল্পীকে আমাদের মাঝে উপস্থাপন করার, আমাদেরকে তাঁর আবৃত্তি শোনার সুযোগ করের দেয়ার । এর একক কৃতিত্ব হোসেনের । অন্যথিয়েটার টরন্টো এবং অন্যস্বরের সকল সদস্য এবং টরন্টোর সকল সাংস্কৃতিক কর্মীদের পক্ষ থেকে এই দুই সংগঠনের কর্নধার ও আমাদের অভিভাবক আহমেদ হোসেন কে জানাই অভিনন্দন, কৃতজ্ঞতা ও ভালোবাসা ।

 

ছবিঃ দেলওয়ার এলাহী ও হিমাদ্রী রয়


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান