নারী দিবস নয় ’মানব সপ্তাহ’ বা ’মানব মাস’!

Thu, Mar 8, 2018 9:22 AM

নারী দিবস নয় ’মানব সপ্তাহ’ বা ’মানব মাস’!

জামিলুর রহমান চৌধুরী :জাতিপুঞ্জ থেকে শুরু করে এমন অনেক দেশের ছোট গ্রামটি পযন্ত বিস্তৃত হয়ে আছে অনাচার, অন্যায় আর সীমাহীন দুর্নীতি যাতে জড়িত কেবলই মানুষ । মানুষ হয়ে মানুষই মানুষের ক্ষতি করছে । আশরাফুল মাখলুকাত আমরা, আমাদেরকে সৃষ্টির সেরা স্বীকৃতি দিয়ে মহান আল্লাহ রাব্বুল আ’লামিন এ ধরায় পাঠিয়েছেন । অথচ সৃস্টির সেরারাই তাদের মধ্যে যারা সবল আছে তারা দুর্বলের উপর দেদারসে অত্যাচার করছে, অন্যায়ভাবে বিশ্বব্যাপী এই সেরারাই অন্য সেরাকে মারছে, কখনো কখনো কোন কারন ছাড়াই মারছে । আর তা করছে কেবলই ব্যক্তিগত স্বার্থের জন্যে, কখনো  ক্ষমতার জন্যে, কখনো সম্পদের জন্যে আবার কখনোবা নাম-যশ কামানোর জন্যই এসব ঘটছে । আর দেখে-শুনে মনে হচ্ছে যেন এসব করার জন্যই আমাদের জন্ম হয়েছে, যা  বন্ধেরও কোন আলামত বিশ্বব্যাপী কোথাও দেখা যাচ্ছে না একেবারেই ।

পিপড়াঁ বা গরু-মহিষ যখন দলবেঁধে সারিবদ্ধভাবে চলে তখন কেবলই মনে প্রশ্ন জাগে তারা কতটুকু শিক্ষিত, তারা কোথ্থেকে পিএইচডি নিয়েছে, তারা কতটুকু ধমানুরাগী, তারা কোন মসজিদ, মন্দির, গীর্জা বা পাগোটায় ধম্ম কম্ম করে, তারা কতটা সময় ধর্মীয় কাজে ব্যয় করে বা এ নিয়ে  কতটুকু বাড়াবাড়ি করে । এরা কি মসজিদ, মন্দির, গীর্জা, পাগোটা ভাংগে ? এরা কি বলে এটা খাওয়া যাবে না, ওটা করা যাবে না, এরা কি বলে অমুক দেশ তমুক দেশে ঢুকতে পারবে না বা এটা সেটা করা যাবে না ? পিপড়াঁ বা গরু মহিষ কি ছুরি দিয়ে মানুষকে আঘাত করে বা মেরে ফেলে, পিপড়াঁরা বা গুরু মহিষ কি কসাইখানা পুড়িয়ে ফেলতে কাউকে উদ্বুদ্ধ করে ? এরা মুলত চিরাচরিতভাবে যা তাদের করার কথা তাই করে থাকে

না, এরা এসবের কিছই করে না, এরা মুলত চিরাচরিতভাবে যা তাদের করার কথা তা ই করে থাকে। তাহলে কারা করে ? আমরা করি, আমরা মানুষেরা করি । আমরা যারা আশরাফুল মাখলকাত বা সৃষ্টির সেরা দাবীদার, যারা শিক্ষিত, অনেক বড় শিক্ষিত, অনেক গুণী , বড় বড় শিক্ষা প্রতিষ্টান থেকে বড় বড় ডিগ্রী নিয়েছি বা বড় বড় কথা বলা শিখেছি তারাই এসব করছি । আমরা যারা মসজিদে যাই, মন্দিরে যাই, গীর্জায় যাই, পাগোডায় যাই, রঙ-বেরঙের কাপড় পড়ি, সাধু-মোল্লা-যাজক-মন্ক সাজি এই আমরাই করি এসব । না মানি ধম, না মানি নৈতিকতা , ক্ষণে ক্ষণে রং পাল্টাই কেবল !

অথচ এসব থেকে উত্তরনের কোন উপায় আমরা মানুষেরা খুঁজি না, যেন যা চলছে তা চলতে দিতেই আমরা বেশী আগ্রহী। আমরা জাতিপুন্জের অভিভাবক পাল্টাই, গ্রামের মোড়ল পাল্টাই, নেতা পাল্টাই কিন্তু পাল্টাই না নীতি-নৈতিকতা, যে নীতি নৈতিকতা এসবের ন্যুনতম পরিবতন  আনতে সহায়ক হতে পারতো বা পারবে ।

আমরা এই মানুষেরাই মানুষের একটা অংশ নিয়ে দিবস উদযাপন করি । ভাবি এরা দুবল, এরা অন্য অংশের মতো সবল নয় । এরা নির্যাতিত হলে অন্য অংশ কখনো সহানুভূতি দেখাই বা কখনো অন্যভাবে বুঝাই যে তোমরা দুবল তাই তোমাদের এটা-ওটা করা বা বলা উচিৎ নয় এমনকি ঐ অংশের কেউ ক্ষমতাবান হলেও বা রাস্ট্র ক্ষমতায় থাকলেও তারা নিজেরাও যেমন নিজেদের সম্মানিত করে না তেমনি অন্যদেরকেও এ থেকে বিরত থাকতে উৎসাহী করে না ।

তাই কোন অংশের মানুষ নিয়ে দিবস উদযাপন না করে আমাদের উচিৎ সমগ্র মানব জাতি নিয়ে কোন কিছূর উদযাপন করা এবং এটা হতে পারে দীর্ঘদিনের যেমন সপ্তাহব্যাপী বা মাস ব্যাপী । নামকরন করা যেতে পারে ’মানব সপ্তাহ’ বা ’মানব মাস’ যেখানে নারী-পুরুষ সকলের অংশগ্রহণ থাকবে এবং এতে কর্মসূচী থাকবে নিম্নরুপ:

এক). পাশের ঘর, নিজ বাড়ী বা পাড়া প্রতিবেশী, নিজ গ্রাম, বন্ধু-বান্ধব বা আত্মীয়-স্বজনের উপকারে আসে এমন কোন কাজ করা;

দুই). কারো কখনো কোন ক্ষতি করে থাকলে তার জন্য দু:খ প্রকাশ করে অন্তত একদিন তার সংগে কাটানো ।

তিন). বিপদগ্রস্থ অন্তত একজন মানুষের বিপদ মুক্তির লক্ষ্যে কিছু কাজ করা। হোক সেটা নিজ বাড়ী, নিজ গ্রাম বা আত্মীয়-স্বজন, বন্ধূ –বান্ধব ।

চার). সর্বোপরি, সপ্তাহব্যাপী বা মাসব্যাপী মিলনমেলা চলতে থাকবে যেখানে নারী-পুরুষ, শিশু-বৃদ্ধ, শিক্ষিত-অশিক্ষিত জাতি-ধম নির্বিশেষে সকলের অংশগ্রহণ বাধ্যতামূলক থাকবে।

 সপ্তাহব্যাপী বা মাসব্যাপী এসব ভালো কাজের অভ্যাস করলে নি:সন্দেহে এই আশরাফুল মাখলুকাতের মধ্যে কিছু না কিছূ পরিবর্তন আসতে বাধ্য এবং এতে করেই এ ধরনী হতে পারে মানবজাতির বাসযোগ্য শ্রেষ্ট স্থান ।  আর কিছুটা হলেও সার্থকতা পেতে পারে আশরাফুল মাখলুকাত নামকরন । যা কেবল নারী দিবসের মধ্যে সীমাবদ্ধ রেখে সম্ভব নয় একেবারেই এবং কোনকালেই ।

৮মার্চ, ২০১৮ইং


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান