অদিতির কাছে খোলা চিঠি

Wed, Mar 7, 2018 4:26 PM

অদিতির কাছে খোলা চিঠি

নাসরিন শাপলা: প্রিয় আদিতি, বাংলাদেশ থেকে হাজার মাইল দূরের একটি দেশে থাকি আমি। তোমার লেখাটা যখন আমার চোখে পড়লো, তখন এখানে মাত্র সকাল হলো। সকাল মানেই ব্যস্ততা। মেয়েদের স্কুলের জন্য তৈরি করলাম। ওদের বিদায় দিয়ে দৈনন্দিন হাতের কাজগুলো সারলাম। তবুও ফাঁকে ফাঁকে তোমার প্রোফাইল ঘাটছিলাম। আর এই পুরোটা সময় মনে মনে আমি তোমার সাথে কথা বলছিলাম।

আমি কল্পনাও করতে পারছি না, কি ভয়াবহ এক ট্রমার মধ্যে দিয়ে গেছো তুমি? তারপরেও মাথা ঠান্ডা করে একা একা বাসায় ফিরেছো, ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে জানিয়েছো তুমি ভালো আছো। এখন কি একটু ঘুমাতে পারছো তুমি?

তোমার স্ট্যাটাস পড়ে রাগে, দুঃখে আমার চোখে পানি এসে গিয়েছিলো। তবুও এর মাঝে দুটো শান্তির আর গর্ব করার মতো বিষয় তুমি আমাকে দিয়েছো। প্রথমটি হলো, একজন পুলিশ অফিসার তোমাকে এই পিশাচগুলোর হাত থেকে রক্ষা করে বাসে তুলে দিয়েছেন। আর দ্বিতীয়টি হলো স্বয়ং তুমি। তোমার সাহস, তোমার স্পষ্টবাদিতা আমাকে যে কি প্রচন্ড গর্বিত করেছে, সেটা আমি বলে বোঝাতে পারবোনা। তুমি আজকে যে মানসিক শক্তি দেখিয়েছো, বিশ্বাস করো, তোমার বয়সী একটি মেয়ের মা হয়েও আমার নিজেরও এতোটা মানসিক শক্তি নেই। I wish I could borrow some strength from you. I am truly truly proud of you.

 

একজন জানালো, তুমি নাকি স্ট্যাটাসটা সরিয়ে নিয়েছো। আমি মনে মনে শুধু worst case scenario টাই চিন্তা করছিলাম। ভয় পাচ্ছিলাম হয়তো পরিবারের চাপে, নয়তো স্কুলের চাপে, আর কিছু না হলেও সামাজিক চাপে তুমি স্ট্যাটাসটা সরিয়ে দিয়েছো। এখন চেক করে দেখলাম, সেখানেও তুমি আমাকে ভুল প্রমানিত করলে। তুমি তোমার লেখাটাকে কেউ কেউ পলিটিসাইজ করার চেষ্টা করছে বলে, ওনলি মি করে রেখেছো। আমার ধারনা ভুল, এটা জেনে জীবনে এতো আনন্দিত কখনো হইনি।

তোমার ফেসবুক পেজ বলে, তুমি মেধাবী, তুমি বাগ্মী, তুমি সচেতন, তুমি অকুতোভয় আবার খানিকটা বোহেমিয়ানও বটে। আচ্ছা তোমার লাষ্ট নেমটা কি সত্যিই বৈরাগী, নাকি এটা তোমার নিজেকে এক্সপ্রেস করার জন্য নিজেরই বেছে নেয়া টাইটেল (কারন আমি একমাত্র অভিনেতা ফক্রুল হাসান বৈরাগী ছাড়া জীবনে আর কারো এই লাস্ট নেম শুনিনি)। সে যাই হোক, তোমার এই চরিত্রের কোন বৈশিষ্টকে যদি কেউ ভুলেও আজকের ঘটনার জন্য দায়ী করার চেষ্টা করে, মনে রেখো তারা তোমার করুণা ছাড়া আর কিছুরই যোগ্য নয়।

হয়তো আজকের এই ট্রমা তোমার সাথে থেকে যাবে সারাজীবন। পাশে বসা বন্ধুটাকে হয়তো আজ থেকে অন্যচোখে দেখতে শিখবে তুমি। তোমার জীবনটা হয়তো এখন অনেকখানিই বদলে যাবে। অনেকেই আঙ্গুল তুলবে তোমার দিকে। শুধু আমার অনুরোধ তুমি বদলে যেওনা। তুমি সাহসী থেকো। তোমরা যদি আমাদের মতো সাহস হারিয়ে ফেলো, তাহলে দেশটা আরো অন্ধকারে তলিয়ে যাবে। তবে দেশে তুমি থাকবে কি থাকবে না সেটা এখন তোমার সিদ্ধান্ত। যে দেশ তোমাকে নিরাপত্তা দিতে পারেনা, সে দেশের কোন অধিকার নেই তোমাকে আটকে রাখার।

অদিতি, তোমাকে তুমি করে বললাম বলে কিছু মনে করলে না তো? আমার একটা ঠিক তোমার বয়সী মেয়ে আছে। তোমার মুখ থেকে ওর মুখটা আমি কিছুতেই আলাদা করতে পারলাম না। আমি ওকে তোমার কথা বলবো। চাইলে তোমরা বন্ধু হতে পারো, দুটো ভিন্ন দেশে বড় হওয়ার অভিজ্ঞতা একে অপরের সাথে শেয়ার করতে পারো।

জীবন অনেক সুন্দর অদিতি, তোমার ডাকনামের মতোই মিষ্টি। আমি অনেক দূরে বসেও তোমার জন্য প্রার্থনা করবো। এখন থেকে তোমার জীবনটা যেন প্রতিদিন তোমার হাসির মতোই নির্মল হয়। ভালো থেকো মেয়ে। অনে......ক অনে......ক ভালো।


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান