হ্যামিলটনে  মুখোশধারী ‘নিনজা গ্রুপের’ ব্যাপক সন্ত্রাস!

Sun, Mar 4, 2018 3:31 PM

হ্যামিলটনে  মুখোশধারী ‘নিনজা গ্রুপের’ ব্যাপক সন্ত্রাস!

নতুনদেশ ডটকম: প্রায় ৩০ জনের একটি গ্রুপ। প্রত্যেকের পরনেই কালো কাপড়, মুখমন্ডল পুরোটাই ঢাকা। সামনে বিশাল একটি ব্যানার- যাতে লেখা; We are  the ungovernable”.  হ্যামিলটন শহরের  লক স্ট্রিটে গ্রুপটি যখন হাটতে শুরু করে তখনো কেউ বুঝতে পারছিলো না আসলে কি ঘটতে যাচ্ছে। কিছুক্ষণের মধ্যেই তারা টের পান- শহরে কখনো যা ঘটেনি তাই ঘটছে আসলে।পুরো এলাকা সন্ত্রস্ত হয়ে ওঠে।

লক স্ট্রিটের রাস্তা ধরে হাটতে হাটতে গ্রুপটি হঠাৎ করেই ‘ধোঁয়া বোমা’ (স্মোক বোম)  নিক্ষেপ করতে শুরু করে। তারপরই তারা রাস্তায় থাকা গাড়িতে, দোকানের দরোজা জানালায়, পাশ্ববর্তী বাড়ী ঘরে পাথর আর ডিম  নিক্ষেপ করতে শুরু করে। নজিরবিহীন এই ঘটনা ঘটেছে হ্যামিল্টনে শনিবার সন্ধ্যায়।

ঝড়ের মতো পাথর আর ডিম ছুঁড়ে দেওয়ার সময় বিভিন্ন রেস্টুরেন্ট  বা দোকানে থাকা ক্রেতারা আতংকিত হয়ে পরে। দ্রুত পুলিশ ডাকে কেউ কেউ।  

ইন্সপেক্টর  পল হ্যামিল্টন জানান, শনিবার রাত ১০টার কিছু আগে ‘ডাকাতি’ হচ্ছে এই ধরনের একটি বার্তা আসে পুলিশের কাছে। দুইজন পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলে গিয়ে হাজির হন। তারা দেখতে পান- সেখানে কালো কাপড় পরা, মুখ ঢাকা বিশাল একটি গ্রুপ। হ্যামিল্টন জানান, দুইজন অফিসার গ্রুপটির মুখোমুখি হন, কিন্তু তাদের ছুঁড়ে দেওয়া পাথর ঝড়ে দ্রুতই সরে যেতে হয় তাদের।

ব্যাকআপ ফোর্সের জন্য বার্তা পাঠায় পুলিশ। আশপাশের কয়েকটি ডিভিশন থেকে প্রায় ৩০ জনের মতো পুলিশ এসে জড়ো হয় ঘটনাস্থলে।তক্ষনে হামলাকারীরা গায়ের কাপড় ফেলে দিয়ে ঘটনাস্থল থেকে দ্রুত সরে পরে। পুলিশ কাউকেই আটক করতে পারেনি।

হ্যামিল্টনের কয়েকটি সড়কে সংঘটিত এই ত্রাসে কেউ আহত হয়নি।  পুলিশের প্রাথমিক হিসাব অনুসারে অন্তত ১০০ হাজার ডলারের ক্ষয় ক্ষতি হয়েছে।

‘নিনজা’র সাজে সজ্জিত সংগঠিত একটি গ্রুপের এই ধরনের হামলার ঘটনায় হ্যামিলটনবাসী আতংকের পাশাপাশি বিস্মিতও হয়েছেন। ইন্সপেক্টর হ্যামিল্টন জানান, তার ২৮ বছরের কর্মজীবনে হ্যামিলটন শহরে এই ধরনের ঘটনা ঘটতে দেখেননি।

‘নিনজা গ্রুপের’ এই তান্ডবের সাথে কারা জড়িত তা খুঁজে বের করতে হ্যামিলটন পুলিশ টানা তদন্ত করে যাচ্ছে।

সূত্র: খবরের তথ্য ও ছবি হ্যামিলটন স্পেক্টেটর থেকে নেওয়া।


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান