ড্যানফোর্থ ইসলামিক সেন্টারের  " সন্তান লালন পালনে ইসলামী মূল্যবোধের গুরুত্ব" শীর্ষক  আলোচনা সভা

Tue, Nov 28, 2017 10:28 PM

ড্যানফোর্থ ইসলামিক সেন্টারের  " সন্তান লালন পালনে ইসলামী মূল্যবোধের গুরুত্ব" শীর্ষক  আলোচনা সভা

নতুনদেশ ডটকম : ড্যানফোর্থ ইসলামিক সেন্টারের উদ্যোগে এবং মুসলিম সার্কেল অব কানাডা টরন্টো সিটি ইউনিটের সহযোগিতায় গত ২৬ নভেম্বর রোববার বা'দ মাগরিব " সন্তান লালন পালনে ইসলামী মূল্যবোধের গুরুত্ব" শীর্ষক  এক আলোচনা সভা  ডি আই সি মসজিদে অনুষ্টিত হয়।

 ডি আই সির প্রেসিডেন্ট জনাব নাজমুল হুদার সভাপতিত্বে অনুষ্টিত উক্ত সভায় শুরুতে সংক্ষিপ্ত দারসুল হাদীস পেশ করেন করেন  ডি আই সির ইমাম জনাব ফারুক আহমদ। উপস্থিত ছিলেন এম সি সির টরন্টো সিটি সভাপতি নাইমুল ইসলাম।  এনামুল হক কাওছারের পরিচালনায় উক্ত আলোচনা সভায় প্রধান বক্তা ছিলেন বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ, ড্যানফোর্থ ইসলামিক সেন্টারের খতীব শায়েখ ইরশাদ ওসমান ।

শায়েখ ইরশাদ ওসমান তার বক্তব্যে বলেন-মানবিক দুর্বলতার কারনে মানুষ অন্যের ভাল দেখলে হিংসা করে কিন্তু একটি মাত্র জায়গা আছে, আর তা হল আপন সন্তানের উন্নতি দেখলে কোন পিতামাতা হিংসা করেননা বরং তারা চান তাদের সন্তান যেন শিক্ষায়, সম্পদে, সম্মানে এমনকি চরিত্রের দিক দিয়েও সন্তান যেন তাদের চেয়ে ভাল হয় সুতরাং সন্তানদের বুঝতে হবে কোন পিতা মাতা-ই সন্তানের অমংগল চাননা।অপর দিকে পিতামাতা যদি তাদের সন্তানদের সুন্দর জীবন উপহার দিতে চান তা হলে তাদেরকে নিরলস ভাবে সন্তানের কল্যানে কাজ করতে হবে। তাদেরকে সময় দিতে হবে, মনযোগ সহকারে তাদের কথা শুনতে হবে, কথায় কথায় উত্তেজিত হওয়া চলবেনা, আদর দিয়ে তাদেরকে কাছে টানতে হবে।তাদের মতামতের মূল্য দিতে হবে সর্বপরি নিজের রাগকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।পিতামাতাকে সন্তানের জন্য নিজেদেরকে আদর্শ মডেল হিসাবে তুলে ধরতে হবে যেন সন্তান বলতে পারে যে, পিতামাতার কঠোর নির্দেশের কারনে এ ভাল কাজটি আমি করি নাই বরং আমার বাবা মা কে দেখে এ ভাল কাজ করতে শিখেছি।যাদের সন্তান ভাল চরিত্রের অধিকারী তারাও হাত পা গুটিয়ে বসে থাকলে চলবেনা সর্বদা মনিটরিং করতে হবে কেননা জিন বা মানুষ শয়তান তাকে যে কোন সময় মিস গাইড করতে পারে। একজন কৃষক যেমন তার ক্ষেতের সুন্দর ফসল দেখে খুশিতে  আত্বহারা হয়ে  বেখবর হয়ে যায়নি কারন সে সব সময় চিন্তিত থাকে যে, যে কোন সময় বন্য জন্তু তার ফসলের ক্ষতি করতে পারে তাই সে প্রয়োজনে রাত জেগে পাহারা দেয় সুতরাং পিতামাতাকে তাদের আদরের সন্তান কারো দ্বারা নষ্ট নাহয় সে ব্যাপারে সর্বদা সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।

আলোচনা শেষে প্রশ্নত্তোর শুরু হলে আলোচক উপস্থিত অভিভাবকদেরকে তাদের সন্তান প্রতিপালনে সমস্যা ও কোন পরামর্শ থাকলে তুলে ধরা অপর দিকে প্রোগ্রামে উপস্থিত সন্তানরা তাদের সমস্যা ও পিতা মাতার কাছে  কি ধরনের আচরণ তারা আশা করেন তা  ব্যক্ত করার জন্য উম্মুক্ত আলোচনার সুযোগ দিলে এ পর্বটি খুবই আকর্ষনীয় হয়ে ওঠে।

আভিভাবকদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন জনাব হেলাল চৌধুরী, জনাব মির্জা মুস্তাফিজুর রহমান , জনাব  নুরুল ইসলাম, জনাব মুক্তার হোসেন বাহার এবং সন্তানদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন তারিফুর চৌধুরী এছাড়া মহিলা সেকশন থেকে দুইজন মা এবং একজন মেয়ে বক্তব্য রাখেন।

সার্বিক সহযোগিতায় ছিলেন, জিলজানাহাইন জায়গীরদার, আহসান হাবিব, ছামিন,সালেহীন, হাসনা শিলা, নাহিদা প্রমুখ  । বিজ্ঞপ্তি।


External links are provided for reference purposes. This website is not responsible for the content of externel/internal sites.
উপরে যান