বিমানের পাইলট গ্রেফতার এবং র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলন

Wed, Nov 1, 2017 12:24 AM

বিমানের পাইলট গ্রেফতার এবং র‌্যাবের সংবাদ সম্মেলন

শওগাত আলী সাগর: “বিমান নিয়ে ‘নাশকতার পরিকল্পনার’ অভিযোগে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ফার্স্ট অফিসার সাব্বির এমামসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। র‍্যাবের দাবি, বিমান চালিয়ে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের ব্যক্তিদের বাসভবনে আঘাত করার পরিকল্পনা ছিল।“ খবরটি পড়তে পড়তে গা কাঁটা দিয়ে উঠলো। ঘটনাটা নানা কারনে উদ্বেগের এবং আতংকের। র‌্যাব নিশ্চয়ই সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতেই তাদের গ্রেফতার করেছে এবং সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে জাতিকে এই খবর জানিয়েছে।

আমরা র‌্যাব এর তথ্যকে সঠিক বলেই ধরে নিতে চাই। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স একটি জাতীয় প্রতিষ্ঠান। সরকারি মালিকানাধীন এই প্রতিষ্ঠানের একজন পাইলট যদি এমন ভয়ংকর ষড়যন্ত্র করে থাকে, তা হলে আর কোথায় কোথায় এমন ষড়যন্ত্র হতে পারে সেই ভাবনাও এমনিতেই চলে আসে।

তবে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এইখবরটি জানানোর ব্যাপারে আমার খানিকটা অবজারভেশন আছে। বিমান একটি স্পর্শকাতর প্রতিষ্ঠান, তার কাজকারবার বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাথে। বিমানরে পাইলটের নাশকতার ষড়যন্ত্র বিমানের ভাবমূর্তিকে কোথায় নিয়ে যাবে- সেই বিষয়টা না হয় ভাবনা থেকে বাদই দিলাম। এমনিতেই বিমান লোকসানী প্রতিষ্ঠান। এর ব্যবসা নিয়ে খোদ সরকারও যে খুব একটা ভাবেন, সেটা বিশ্বাস করার তেমন কোনো কারন নাই। পাইলট গ্রেফতার হওয়ার খবর বিমানের ব্যবসায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে- এটা স্বাভাবিক।

কিন্তু বহির্বিশ্বে যে বার্তাটা গেলো, সেটি কি বাংলাদেশের জন্য সুখকর? এখন যদি বিভিন্ন দেশ বাংলাদেশ বিমানকে নিয়ে ভিন্নরকম কোনো ভাবনা ভাবতে শুরু করে, আমাদের কি বলার কিছু থাকবে? কোনো দেশ যদি সন্ত্রাসের আশংকায় বিমানকে তাদের দেশে প্রবেশাধিকার দিতে না চায়, আমাদের কি কিছু করার থাকবে?

আমরা অবশ্যই অবাধ তথ্যপ্রবাহের পক্ষে। কিন্তু রাষ্ট্রের নিরাপত্তার স্বার্থে, ভাবমূর্তির স্বার্থে কখনো কখনো কোনো খবর প্রকাশের আড়ালে রাখতে হয়। দুনিয়াজোড়াই এই রীতি প্রচলিত আছে। কানাডা আমেরিকাতেও কিন্তু সন্ত্রাসী সন্দেহে অনেকে আটক হয়। পুলিশ সেগুলোর অধিকাংশই সঙ্গে সঙ্গে প্রকাশ করে না। সময় নিয়ে যাচাই বাছাই করে নিম্চিত হয়েও খানিকটা সময় নিয়ে প্রকাশ করে। দেশের নাগরিকরা যাতে আতংকিত হয়ে না পড়েন, সেই কারনেই এই ব্যবস্থা।

আমার কাছে মনে হয়েছে, বিমানরে পাইলট গ্রেফতারের ঘটনাটি প্রচারের ক্ষেত্রে আরো একটু ভাবনা চিন্তা করা যেতো। আরো একটু সময় নিয়ে, আরো একটু রক্ষণশীলভাবে এই খবরটি পগণমাধ্যমে প্রচারিত হতে পারতো। দেশের সামগ্রিকস্বার্থেই সেটি হওয়া ভালো ছিলো।

র‌্যাব এর দায়িত্বনিষ্ঠার জন্য আমরা অবশ্যই র‌্যাবকে ধন্যবাদ দেই। এই ধরনের স্পর্শকাতর সংবাদ পরিবেশনার ক্ষেত্রে আরো সতর্কতাকে  বিবেচনায় নেওয়াকেও আমরা উৎসাহিত করতে চাই।

লেখক: শওগাত আলী সাগর , নতুনদেশ এর প্রধান সম্পাদক


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
External links are provided for reference purposes. This website is not responsible for the content of externel/internal sites.
উপরে যান