‘বাচনিক সম্মাননা ২০১৭’ পাচ্ছেন কবি ফেরদৌস নাহার

Thu, Oct 26, 2017 12:12 AM

‘বাচনিক সম্মাননা ২০১৭’ পাচ্ছেন কবি ফেরদৌস নাহার

নতুনদেশ ডটকম: টরন্টোর আবৃত্তি বিষয়ক সংগঠন ‘বাচনিক’ কবি ফেরদৌস নাহারকে 'বাচনিক সম্মাননা ২০১৭' এর জন্য মনোনীত করেছে। আগামী  ৪ নভেম্বর সংগঠনের পঞ্চ বর্ষপূতি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে এই সম্মাননা তুলে দেওয়া হবে। সম্মাননা  তুলে দেবেন কবি  কবি আসাদ চৌধুরী।  ৪ নভেম্বর সন্ধ্যা ৭টায়, ১৭৮৫ ফিঞ্চ এভিনিউ ওয়েস্টে ইয়র্কউড লাইব্রেরী থিয়েটার হলে বাচনিকের বার্ষিক আবৃত্তি সন্ধ্যাঅনুষ্ঠিত হবে।

প্রসঙ্গত, এ বছর থেকেই প্রথম বারের মতো  ‘বাচনিক সম্মাননা’  প্রবর্তন করেছে আবৃত্তি সংগঠন বাচনিক।

 কবি ফেরদৌস নাহারকে সম্মাননা দেওয়ার ঘোষনায় ‘বাচনিক’  বলেছে, আবৃত্তি সংগঠন হিসেবে 'বাচনিক' কতটা জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে সেটার বিচার করবেন বাচনিকের শ্রোতাবন্ধু ও শুভানুধ্যায়ীরা। কিন্তু বাচনিকের কার্যক্রম যে স্রেফ কবিতা আবৃত্তির মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখেনি একথা সর্বজন বিদিত। সমাজ সচেতনতার দায়ভার কাঁধে নিয়ে 'বাচনিক' দেশ-কালের প্রয়োজনীয় ডাকে এগিয়ে এসেছে। স্মরণ করেছে সাংস্কৃতিক অঙ্গনের পুরোধা ব্যক্তিত্বকে। মানবিক বোধে পাশে দাঁড়িয়েছে মুমূর্ষু কবির। আয়োজন করেছে 'সুচেতনা' শিরোনামের যুদ্ধ, সাম্প্রদায়িকতা ও মৌলবাদ বিরোধী শান্তির সপক্ষে কবিতাসন্ধ্যা। বাংলা ভাষার শ্রেষ্ঠ পঞ্চ কবির কবিতা নিয়ে যেমন আয়োজন করেছে 'পঞ্চ কবির পঙক্তিস্রোত' তেমনি কানাডা প্রবাসী সমকালীন বাংলাদেশী উল্লেখযোগ্যসংখ্যক কবিদের কবিতা নিয়ে আয়োজন করেছে আবৃত্তি অনুষ্ঠান 'সময়সেতুপথে'।

ঘোষনায় বলা হয়েছে, সময়ের সাথে যেমন নিজেদের যুক্ত রাখতে চেয়েছে 'বাচনিক'; তেমনি, ঐতিহ্যের কাছে থেকেছে নতজানু। দায়ভারের প্রসারিত সূচীতে 'বাচনিক' এবার যুক্ত করেছে আমাদের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের উল্লেখযোগ্য কারুকৃৎদের সম্মাননা জানানো। আমাদের সীমাবদ্ধ সাধ্য। এই সীমাবদ্ধ সাধ্যেও সম্মান প্রদর্শনে 'বাচনিক' সচেতন। এই প্রক্রিয়ায় এ বছর থেকে প্রবর্তন করেছে 'বাচনিক সম্মাননা'।

কবি ফেরদৌস নাহার কবি এবং কবিই। কবিতার পাশাপাশি ছবি আঁকেন, গান লেখেন। নিজেকে গদ্য-পদ্যের শ্রমিক বলেন।'ছিঁড়ে যাই বিংশতি বন্ধন' (কবিতা) 'উলঙ্গ সেনাপতি অক্টোপাস প্রেম' (কবিতা) 'দেহঘর রক্তপাখি' (কবিতা) 'সমুদ্রে যাবো অবিচল এলোমেলো' (কবিতা) 'বর্ষার দুয়েন্দে' (কবিতা) 'উদ্ধত আয়ু' (কবিতা) 'বৃষ্টির কোনো ভাষা নেই' (কবিতা) 'পান করি জগৎ তরল' (কবিতা) 'চারুঘাটের নৌকাগুলো' (কবিতা) 'নেশার ঘোরে কবিতা ওরে' (কবিতা) 'পাখিদের ধর্মগ্রন্থ' (কবিতা) 'নাভি ও নন্দন' কবিতাগ্রন্থ সহ নাহার লিখেছেন কবি, কবিতা, চিত্রকর ও চিত্রকলা নিয়ে প্রবন্ধগ্রন্থ।মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঋদ্ধ ফেরদৌস নাহার যেমন সমকালীন কাব্য আন্দোলনের সাথে যুক্ত ছিলেন; তেমনি, স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে প্রতিষ্ঠিত কবিদের সংগঠন 'কবিতা পরিষদ'-এ প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে যুক্ত ছিলেন দীর্ঘদিন। সমকালীন বাংলা কবিতায় কবি ফেরদৌস নাহার নিরন্তর যোগ করে চলেছেন তাঁর রচিত শব্দশৈলীর অপূর্ব সমাহার।


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান