আওয়ামী এমপির এনজিও রোহিঙ্গাদের মধ্যে ‘অন্য কারনে’ কাজ করছিলো!

Wed, Oct 11, 2017 2:04 PM

আওয়ামী এমপির এনজিও রোহিঙ্গাদের মধ্যে ‘অন্য কারনে’ কাজ করছিলো!

নতুনদেশ ডটকম: ‘অন্য কারনে’ রোহিঙ্গাদের মধ্যে কাজ করা যে তিনটি এনজিওকে ত্রাণ তৎপরতা বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে তার একটি আওয়ামী লীগ দলীয় এমপি ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী’র প্রতিষ্ঠান।

আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশন নামের এই এনজিওটি কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের মধ্যে ত্রাণ বিতরনের কাজে সক্রিয় ছিলো। গোলাম আযমের শিষ্য হিসেবে পরিচিত ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সাতকানিয়া- লোহাগড়া এলাকা থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।তিনিই আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশন এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান।

বুধবার সংসদ ভবনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয় সরকার তিনটি বেসরকারি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাকে (এনজিও) রোহিঙ্গাদের মধ্যে ত্রাণ তৎপরতা চালাতে নিষেধ করেছে । এই তিনটি এনজিও হচ্ছে মুসলিম এইড বাংলাদেশ, ইসলামিক রিলিফ এবং আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশন ।

বৈঠক শেষে কমিটির সদস্য মাহজাবিন খালেদ ঢাকার  বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন, “মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তিনটি এনজিওকে রোহিঙ্গাদের মধ্যে ত্রাণ তৎপরতা চালাতে নিষেধ করা হয়েছে। তারা অন্য কোনো কারণে সেখানে কাজ করছিল বলে মনে হয়েছে।‘

সরকার দলীয় একজন এমপি কর্তৃক প্রতিষ্ঠিত ও পরিচারিত এনজিও রোহিঙ্গাদের মধ্যে কি কারনে কাজ করছিলেন- যে সরকারকে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে হয়েছে- এ নিয়ে দেশে প্রবাসে গুঞ্জন তৈরি হয়েছে।  সরকার দলীয় এমপির প্রতিষ্ঠান যদি সরকার তথা রাষ্ট্রের স্বার্থ বিরোধী কাজে রিপ্ত থাকে, তা হলে এমপি হিসেবে তিনি নিজে কতোটা রাষ্ট্রের স্বার্থের অনুকূলে কাজ করছেন- তা নিয়েও প্রশ্ন তোলার সুযোগ আছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশন বিশ্বের বিভিন্ন মুসলিম দেশ এবং সংগঠন থেকে তহবিল সংগ্রহ করেছেন এবং করছেন। এই প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় মাদ্রাসা এবং মসজিদের মধ্যেই কাজ করে। রোহিঙ্গাদের দুর্যোগের মধ্যেও প্রতিষ্ঠানটি যদি ‘অন্য কারনে’ কাজ করে থাকে, তা হলে স্বাভাবিক স্থানে এদের কাজ নিয়েও প্রশ্ন তোলার সুযোগ থাকে।


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
External links are provided for reference purposes. This website is not responsible for the content of externel/internal sites.
উপরে যান