নাগরিকত্বের নতুন বিধানে বিদেশি শিক্ষার্থীদের কি লাভ?

Wed, Oct 4, 2017 9:11 PM

নাগরিকত্বের নতুন বিধানে বিদেশি শিক্ষার্থীদের কি লাভ?

নতুনদেশ ডটকম: নাগরিকত্ব আইনের পরিবর্তন এবং  নতুন ধারা সংযোজনে  বিদেশি শিক্ষার্থীদের  কি কোনো লাভ আছে? থাকলে কিভাবে?- কানাডায় বসবাসরত বিদেশি শিক্ষার্থীদের  অনেকেই এই ব্যাপারে ব্যাখ্যা চেয়েছেন। পাঠকদের প্রশ্ন এবং আগ্রহের পরিপ্রেক্ষিতে এর একটি ব্যাখ্যা তুলে ধরা হলো।  

প্রথমেই বলে নেওয়া ভালো  সংশোধনীটি মূলত কানাডায় নাগরিকত্বের জন্য আবেদনের শর্ত সংক্রান্ত। নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করার অন্যতম একটি শর্ত হচ্ছে রেসিডেন্সি রিকোয়ারমেন্ট বা নির্দিষ্ট একটি সময়  স্থায়ী বাসিন্দা হিসেবে কানাডায় বসবাস করা।  আগে একজন পারমানেন্ট রেসিডেন্ট ছয় বছরের মধ্যে চার বছর  কানাডায়  থাকার পরই নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করতে পারতেন। নতুন নিয়মে পাঁচ বছরের মধ্যে তিন বছর বসবাসের পরই আবেদন করা যাবে। এতে  নাগরিকত্বের আবেদনের জন্য ‘রেসিডেন্সি  রিকোয়ারমেন্টের’ সময়টা কমে এলো।

এখন বিদেশি শিক্ষার্থী তথা ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্টরা এতে কিভাবে লাভবান হবেন?  যারা কানাডায় এসে পড়াশোনা শেষ করে বাংলাদেশে ফিরে যাবেন, এই আইনে তাদের আসলেই কোনো লাভ বা ক্ষতি নেই।  কিন্তু যাদের পরিকল্পনা আছে পড়াশোনা শেষ করে কানাডায়ই থিতু হবেন,  পারমানেন্ট রেসিডেন্সির জন্য আবেদন করবেন তাদের জন্য এই বিধানটি খুবই উপকারি।

একজন বিদেশি শিক্ষার্থী তার পড়াশোনা শেষ করে পারমানেন্ট রেসিডেন্সির জন্য আবেদন করবেন। তারপর তিনি নাগরিকত্বের জন্য আবেদন করবেন। পুরনো আইনে তিনি যে সময়টা পড়াশোনায় কাটাচ্ছেন সেটি কেবল শিক্ষার্থী সময়, অন্য কোথাও সেটি সংযোজন করার সুযেগ নেই। তিনি যখন পারমানেন্ট রেসিডেন্সি পাবেন,সেই সময় থেকে রেসিডেন্সি রিকোয়ারমেন্টের হিসাব হতে থাকতো।

নতুন আইনে তিনি  পড়াশোনাকালীন সময়টারও একটি ক্রেডিট পাবেন। অর্থ্যাৎ নাগরিকত্বের আবেদনের সময় তিনি যখন পারমানেন্ট রেসিডেন্সি পেলেন সেই সময় থেকে নয়, তিনি যখন শিক্ষার্থী ছিলেন সেই সময় থেকে তার রেসিডেন্সির হিসাব করা হবে। সর্বোচ্চ এক বছরের রেসিডেন্সি ক্রেডিট পাবেন তিনি।

ধরুন একজন বিদেশি শিক্ষার্থী  ২ বছরের মাষ্টার্স কোর্স করছেন। নতুন আইনের ফলে আপনি যখন পারমানেন্ট রেসিডেন্ট হবেন, তার সাথে এক বছরের রেসিডেন্সি ক্রেডি হিসেবে যুক্ত হবে। নাগরিকত্বের আবেদনের জন্য আপনাকে তিন বছর অপেক্ষা করতে হবে না।  অর্থ্যাৎ পিআর পাওয়ার পর মাত্র দুই বছর পরই আপনি নাগরিকত্বর জন্য আবেদন করতেপারবেন।  


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
External links are provided for reference purposes. This website is not responsible for the content of externel/internal sites.
উপরে যান