করোনা থেকে, রক্ষা পাওয়ার কোন শর্টকাট রাস্তা নেই

Sun, Apr 5, 2020 9:52 PM

করোনা থেকে, রক্ষা পাওয়ার কোন শর্টকাট রাস্তা নেই

স্নেহাশীষ রয়: বাংলাদেশের সামগ্রিক পরিস্থিতি দেখে মনে হচ্ছে, বাংলাদেশে করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধ খুব দুরুহ হবে। প্রথমত: লক ডাউনে যতটা, সামাজিক দূরত্ব সৃষ্টি করার কথা ছিল, তা করা সম্ভব হয় নি।

বাংলাদেশে সত্যি যদি ইয়োরোপের মত করোনা ছড়িয়ে পড়ে, তবে হয়তো, চিকিৎসাব্যবস্থা পুরোপুরি ভেঙ্গে পড়বে। শুধু করোনার চিকিৎসা নয়, বরং কোন রোগেরই চিকিৎসা দেয়া সম্ভব হয়ে উঠবে না।

তখন সরকারকে আরো কঠিন পদক্ষেপ নিতে হবে, সামাজিক দূরত্ব তৈরী করতে। যে গার্মেন্টস মালিকরা ভাবছেন, এখন কারখানা চালু না করতে পারলে, অর্থনৈতিক ক্ষতি হবে, তারা ভাবতেও পারছেন না, রোগ ছড়িয়ে পড়লে, তারা ঠিক কতটা ক্ষতির সম্মুখীন হবেন।

লক ডাউনের ব্যর্থ প্রচেষ্টা, সরকারকে অর্থনৈতিকভাবে দূর্বল করে তুলবে। এখন খেটে খাওয়া মানুষকে যতটুকু সাহায্য করতে পারছে, ততটুকুও সাহায্য করতে পারবে না, তিন মাস পর। সরকার আসলে, ফিনানসিয়ার মাসল পাওয়ার হারাচ্ছে, কার্যত কিছুই হচ্ছে না।

সরকারকে আপাতত: গার্মেন্টস শিল্পের কথা ভুলে গিয়ে, সর্বাত্মক লক ডাউনের ব্যবস্থা করতে হবে। উপসনালয়গুলোতে প্রয়োজনে সামরিক বাহিনী নিয়োগ করে হলেও, বন্ধ করতে হবে।

শুধুমাত্র কৃষি ও চিকিৎসাখাতকে সচল রেখে, বাকী সবকিছুকে পুরোপুরি বন্ধ করে দিতে হবে।

যুক্তরাষ্ট্রে ইতিমধ্যে পনের মিনিটের মাঝে করোনা টেষ্ট ব্যবহার করা হচ্ছে। এমন পয়েন্ট অব কেয়ার টেষ্টিং, যে কোন উপায়ে সংগ্রহ করতে হবে। যাতে করোনার রোগীকে দ্রুত আইসোলেট করা সম্ভব হয়। অন্য কোন পদ্ধতিতে টেষ্ট শুধুমাত্র, বড় শহর গুলোতেই করা সম্ভব, এর বাইরে নয়।করোনা থেকে, রক্ষা পাওয়ার কোন শর্টকাট রাস্তা নেই।

ইয়োরোপ আমেরিকা যদি, করোনার বিরুদ্ধে সর্বাত্মক যুদ্ধ ঘোষণা করে, তবে তাঁরা করোনা বিধ্বস্ত বাংলাদেশ থেকে তৈরী পোষাক নেবে তা ভাবার কোন যথেষ্ট কারণ নেই।

নিউইয়র্কে বাংলাদেশী-বংশোদ্ভূতদের মাঝে করোনা সহনশীলতার পরীক্ষা হয়ে গেছে। ফল আশাব্যাঞ্জক নয়। আমাদের বাংলাদেশে প্রচুর ডায়েবেটিক, অন্যান আন্ডারলায়িং কন্ডিশান রয়েছে, তাই মৃত্যুর হার অনেক বেশী হবে। কমবয়সী প্রচুর মানুষেও মৃত্যু হতে পারে।

সরকারকে দ্রুত কঠোর হতে হবে। না হলে, ক্ষতি বেশী হবে, পরিত্রাণ প্রলম্বিত হবে।

লেখকের ফেসবুক থেকে


Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান