সিটি কাউন্সিলর হ্রাসঃ ডাগ ফোর্ডের অন্তর্নিহিত প্রতিশোধ স্পৃহার প্রকাশ

Wed, Sep 19, 2018 11:20 AM

সিটি কাউন্সিলর হ্রাসঃ ডাগ ফোর্ডের অন্তর্নিহিত প্রতিশোধ স্পৃহার প্রকাশ

রেজাউল ইসলাম: ডাগ ফোর্ড সিটি কাউন্সিলরদের অকার্যকর, কোন সিদ্ধান্ত নিতে ব্যর্থ, দিনের পর দিন নাগরিকদের করের অর্থ বিনাশ করে যাচ্ছে ইত্যাদি অভিযোগ এনে সিটি কাউন্সিলরদের সংখ্যা কমিয়ে অর্ধেকে নিয়ে আসতে চাচ্ছেন । আর এই কাজটি করতে গিয়ে তিনি এক যুদ্ধংদেহী অবস্থান নিয়েছেন। এমন অবস্থা ইতিপূর্বে কানাডাতে কেউ দেখেনি বলেই আমার ধরনা, কারন লিবারেল , কনজারভেটিভ, এনডিপি থেকে যে-ই ইতিপূর্বে নেতৃত্বে এসেছেন সবাই গণতন্ত্রের প্রতি যথেষ্ট শ্রদ্ধাশীল ছিলেন । এবারই প্রথম দেখা যাচ্ছে স্বৈরাচারের এক অশুভ আগমন বার্তা।

প্রিমিয়ার ডাগ ফোর্ড কাউন্সিলরদের অকার্যকর বলার পেছনে কোন কারন দেখাতে পারেননি । কোথায়, কিভাবে তারা অকার্যকর তার প্রমান কোথায় ? সিটি কাউন্সিলর পদটি একটি নির্বাচিত পদ । বিভিন্নি ওয়ার্ডের জনগন ভোট দানের মাধ্যমে তাদের স্ব স্ব ওয়ার্ডে জনপ্রতিনিধি হিসাবে কাউন্সিলরদের চার বৎসরের জন্য নির্বাচন করেন ।

জনপ্রতিনিধি হিসাবে কাজ না করে বসে থাকার উপায় নেই, কারন চার বৎসর পর এক জন কাউন্সিলরকে আবার ভোটারদের কাছে যেতে হয় । কাজ না করে থাকলে ভোটার তাকে ভোট দিবে কেন ? দেখা যাচ্ছে , কাউন্সিলর পদটি জনগনের কাছে জবাবদিহিতায় আবদ্ধ । তাই এখানে কাজ না করে জনগনের ট্যাক্সের অর্থ ধ্বংস করার সুযোগ কোথায় ? সেরকম হলে জনগন তাকে ভোট দিবেই বা কেন ? জনগন অন্য আরেকজনকে ভোট দিয়ে তাদের ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধি হিসবে পাঠাবে । এখানে কাজের মাধ্যমেই জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে হয় ।

ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে যে উন্নয়ন হচ্ছে তা কি আমরা দেখতে পাই না ? কাউন্সিলরদের দেন-দরবারের কারনেই এই উন্নয়ন গুলি হচ্ছে । তারা সিটি কাউন্সিলে তাদের ওয়ার্ডের বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরেন , কিভাবে তা নিরসন সম্ভব তার রূপরেখা দেন , সেই অনুযায়ী সরকার থেকে সমস্যা সমাধানের জন্য ব্যবস্থা নেওয়া হয় । তাই এখানে অকার্যকর যদি কেউ হয়ে থাকেন তবে তা সরকারের তরফ থেকেই হয়েছে, কাউন্সিলরদের দোষ দিয়ে লাভ নেই । কাউন্সিলররা ঠিকই সমস্যা তুলে ধরেছেন কিন্ত যার হাতে ফান্ড থাকে , বাজেটের বরাদ্দ থাকে সেই সরকার থেকেই সমস্যা সমাধানের কোন উদ্যোগ নেওয়া হয়নি । আর কাউন্সিলর ব্যর্থ হয়ে থাকলে তার বিচার ওয়ার্ডের জনগন করবে পরবর্তীতে তাকে ভোট না দেওয়ার মাধ্যমে । ব্যর্থতার জন্য কাউন্সিলরের সংখ্যা কমিয়ে ফেলা কোন যুক্তি হতে পারে না ।

দুই তিন বৎসর রিভিউ কমিটি গবেষণা করে যেখানে কাউন্সিলরের সংখ্যা বাড়ানোর সুপারিশ করেছিল সেখানে কাউন্সিলরের সংখ্যা কমিয়ে আনার যুক্তি কি? তারা তো নিশ্চয়ই না বুঝে সুপারিশ করেননি । বুঝেই করেছেন ।

এবার আসা যাক ডার্গ ফোর্ড আসলে কেন কাউন্সিলরের সংখ্যা কমাতে চাচ্ছেন সেই বিষয়ে । সবার মনে আছে কিনা জানি না । মেয়র থাকা অবস্থায় বর্তমান প্রিমিয়ারের ভাই রব ফোর্ডের বিরুদ্ধে ক্র্যাক কোকেইন সেবনের অভিযোগ উঠেছিল এবং তার ভিডিও তখনকার পুলিশ প্রধান বিল ব্লেয়ারের কাছে রক্ষিত ছিল । প্রথমে পুলিশ প্রধান ভিডিওটি জনসমক্ষে প্রকাশ করতে চাচ্ছিল না এবং মেয়র রব ফোর্ডও ভেবে নিয়েছিলেন ভিডিওটি প্রকাশ করা হবে না কিন্ত শেষ পর্যন্ত প্রকাশ করা হয় । তাতে দেখা যায় তিনি ক্র্যাক কোকেইন সেবন করছেন ।https://www.youtube.com/watch?v=WjdTi1r-yRQ এই ভিডিওটি প্রকাশ হবার পর কাউন্সিলররা মিটিং করে রব ফোর্ডের ক্ষমতা সঙ্কুচিত করে ডেপুটি মেয়র নর্ম কেলীকে মোটামুটি মেয়রের সব ক্ষমতা অর্পণ করে । মেয়র রব ফোর্ড তখন এক ক্ষমতাহীন পুতুলে পরিনত হয় । সেই সময় ডাগ ফোর্ড একজন কাউন্সিলর ছিলেন । তিনি নিরবে ভাইয়ের প্রতি কাউন্সিলরদের এই ভুমিকা প্রত্যক্ষ করেন ।

তাই প্রিমিয়ার হবার প্রথম পদক্ষেপ হিসাবে তিনি কাউন্সিলরের সংখ্যা অর্ধেক করার সিদ্ধান্ত নেন । এর পেছনে যত না যুক্তি আছে তার চেয়ে বেশি আছে পুঞ্জীভূত ক্ষোভ এবং ভাইয়ের প্রতি কাউন্সিলরদের আচরণের প্রতিশোধ স্পৃহা ।


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান