ওন্টারিওতে লিবারেল হেরে গেলো যে কারনে

Sat, Jun 23, 2018 12:02 AM

ওন্টারিওতে লিবারেল হেরে গেলো যে কারনে

ইমাম উদ্দিন : সম্প্রতি অনুষ্ঠিত ওন্টারিওর প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন ছিল লিবারেল পার্টির জন্য খুবই বিপর্যয়কর। মাত্র ৭টি আসন পেয়ে দলটি অফিসিয়্যাল পার্টি স্ট্যাটাস থেকে বঞ্চিত হয়েছে। পরাজয় যে হবে এমন ধারণা খোদ প্রিমিয়ার ক্যাথলিন উইনের নির্বাচনী একটি বক্তব্যেই প্রকাশ পেয়েছিল। তবে  ওন্টারিও লিবারেল পার্টির ১৬১ বছরের ইতিহাসে এমন খারাপ ফলাফল হবে তা কারো কল্পনাতেই ছিল না। কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে কেন এই শোচনীয় পরাজয়? আসুন সেটাই জানার চেষ্টা করি।

গত পনের বছর ওন্টারিওতে লিবারেল পার্টি একটানা ক্ষমতায়। জনগণ এবার একটা পরিবর্তন চেয়েছে। বিশেষ করে দ্রব্য-মুল্যের ক্রমাগত উর্ধ্বগতি, জীবন যাত্রার ব্যয় বৃদ্ধি, ব্যবসা-বাণিজ্যে মন্দা, স্থায়ী চাকুরীর পরিবর্তে খণ্ডকালীন ও সুযোগ-সুবিধা বিহীন চাকুরীর দিকে কর্মজীবীদের ঠেলে দেয়া, বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধি, সিদ্ধান্ত গ্রহণে কালক্ষেপন, বাড়ীর মূল্য অস্বাভাবিক বৃদ্ধি, প্রাথমিকে যৌন শিক্ষা অন্তর্ভুক্তির মতো বিষয়গুলোকে ভোটাররা স্বাভাবিকভাবে নেয়নি।

গত কয়েকবছর ওন্টারিওতে দ্রব্যমুল্যের দাম যেভাবে বেড়েছে, জনগণের আয় সেভাবে বাড়েনি। এবছরের শুরুতে নুন্যতম মজুরী ১৪ ডলার হওয়ার পরপরই খাদ্যদ্রব্যের দাম ১.৯ শতাংশ বাড়ে

বলে জানায় স্টাটিস্টিকস কানাডা। গত ডিসেম্বরে ডালহৌসী ও ইউনিভার্সিটি অব গুয়েলফ তাদের এক গবেষণা প্রতিবেদনে বলেছিল ২০১৮ সালে চারজনের একটি পরিবারে শুধু খাবারের জন্য বাড়তি খরচ হবে ৩৪৮ ডলার। মুলত তাই হয়েছে। গত কয়েকবছর দ্রব্য মুল্যের এই উর্ধ্বগতি ভোটারদের কাছ থেকে ওন্টারিও লিবারেল পার্টিকে দূরে সরে দিয়েছে।

শুধু দ্রব্য-মূল্য বৃদ্ধি নয়, ব্যবসা-বাণিজ্যেও গত এক দশক ধরে মন্দা বিরাজ করছে। ওন্টারিওকে বলা হয় কানাডার ইকনমিক ইঞ্চিন। অথচ এখানে অনেক ছোট ব্যবসায়ী তাদের ব্যবসা গুটিয়ে ফেলেছে। শুধু গত জানুয়ারিতে ম্যানুফ্যাকচারিং সেলস কমেছে ৫.৩ শতাংশ। ২০১৪ সাল থেকে কানাডিয়ান ডলার .৯০ থেকে ৬৮.২ তে এসে ঠেকেছে।

বিদ্যুতের মুল্য বৃদ্ধিও ওন্টারিওতে লিবারেলের পরাজয়ের একটা অন্যতম কারন বলে ধরে নেয়া হয়। বিদ্যুত বিল বাড়ছিল ক্রমাগত। অবকাঠামোগত উন্নয়নে বিগত বাজেটে ২৯ বিলিয়ন ডলার ধার্য করা হয়েছিল। আর এই অর্থ সংস্থানের জন্য হাইড্রোওয়ানের ৬০ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করতে চেয়েছিল ক্যাথলিন উইনের সরকার। যা জনগণ সহজভাবে নেয়নি।

গ্রেড ওয়ান থেকে শিক্ষা কারিকুলামে যৌন শিক্ষা অন্তর্ভুক্ত করেছিলেন ক্যাথলিন উইন। ওন্টারিও জুড়ে ব্যাপক প্রতিবাদের মুখে লিবারেল সরকার তাদের এই সিদ্বান্তে অনড় ছিলেন।

কাগজে কলমে ওন্টারিওতে গত কয়েকবছর বেকারত্বের হার কম বলা হলেও প্রকৃত চিত্রটা কিন্তু একেবারেই ভিন্ন। বর্তমানে বেকারত্বের হার ৫,৫ শতাংশ বলা হলেও মুলত এ হার দিগুণ। আইএলও এর সংজ্ঞা অনুযায়ী বেকার তাদের বলা হয় যারা কোনো কাজে নেই এবং সিরিয়াসলি কাজ খুঁজছে। তবে যারা গুরুত্বের সাথে কাজ খুঁজছে না কিন্ত বেকার তারা এই অফিসিয়্যাল বেকারত্বের বাইরে। রাজনীতি বিশ্লেষক মার্টিন কেয়েন এর একটি লেখা প্রকাশিত হয় গত বছরের ২৭ সেপ্টেম্বর, টরন্টো স্টারে। ওন্টারিও ইজ কমপ্লিসিট ইন প্রিকেরিয়াস এমপ্লয়মেন্ট শিরোনামে প্রকাশিত লেখায় বলা হয়, এখন যারা ওন্টারিওতে কাজ করছেন, বেশিরভাগই সুযোগ-সুবিধা বিহীন এজন্সি স্টাফ, এছাড়া অনেকেই কাজ করেন খন্ডকালীন। টরন্টো স্টার-এরই এক অনুসন্ধানে দেখা যায়, ওন্টারিওতে ২৫৮৮টি অস্থায়ী এজেন্সীর কোনটার অফিস নাকি বাসা-বাড়ীতে, এমনকী এমনও এজেন্সি ডব্লিউিএসআইবিতে রেজিস্টারে আছেকিন্তু ঘর-বাড়ী বিহীন খালি জায়গায় তাদের অফিস দেখানো হয়েছে। অথচ এই প্রভিন্সে বর্তমানে সবমিলিয়ে আইন এবং নিয়ম নীতির সংখ্যা ৩ লাখ ৮০ হাজার।

ক্যাথলিন উইনের লিবারেল সরকার গত কয়েক বছর ভাল কাজ যে করেনি তা নয়। উচ্চশিক্ষায় ফ্রি টিউশন, পঁচিশ বছরের কম বয়সীদের জন্য ওষুদ ফ্রি, নুন্যতম মজুরী বৃদ্ধিসহ অনেক সুযোগ-সুবিধা দেয়ার চেষ্টা করেছে। কিন্তু এসব করেও তারা ভেটারদের মন জয় করতে পারেনি। লিবারেল ক্ষমতা নেয়ার পর থেকে গত পনের বছরে ওন্টারিও প্রভিন্সের ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩০৭ বিলিয়ন ডলার। হয়তো প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনে  লিবারেল পার্টির ফলাফল বিপর্যয়ের জন্য  অন্যান্য কারনের সাথে এটাও একটা। এখন অপেক্ষার পালা দেখা যাক দলটি এই প্রভিন্সে কীভাবে আবার ঘুরে দাড়ায়।  

লেখক: প্রেসিডেন্ট, কানাডিয়ান সেন্টার ফর ইনফরমেশন এন্ড নলেজ


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
Designed & Developed by Tiger Cage Technology
উপরে যান