৮ময় বর্ষ সংখ্যা ৫০ | সাপ্তাহিক  | ২৩ আগস্ট ২০১৭ | বুধবার
কী ঘটছে জানুন, আপনার কথা জানান

৩৫ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ মামলার মুখোমুখি কানাডার গোয়েন্দা সংস্থা

নতুনদেশ ডটকম

কানাডার প্রধান গোয়েন্দা সংস্থা কানাডীয়ান  সিকিউরিটজ ইন্টেলিজেন্স সার্ভিসেস (সিএস আইএস) এর বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ এনে  ৩৫ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ চেয়ে ফেডারেল কোর্টে মামলা দায়ের করেছে সংস্থাটির পাঁচ জন কর্মী।

 মামলার অভিযোগে ‘অসীম ক্ষমতাধর’ এই সরকারি সংস্থাটির যে চিত্র তুলে ধরা হয়েছে তাতে রাজনীতিকদের বাইরে কানাডার মুসলমানদের সংগঠন দি ন্যাশনাল কাউন্সিল অব কানাডীয়ান মুসলিম গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।  

প্রসঙ্গত, মামলা দায়েরকারী পাঁচ কর্মীর নাম কিংবা পরিচয় প্রকাশের  ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।  আদালতের নথিপত্রেও তাদের প্রকৃত নাম পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে।  ধারনা করা হচ্ছে, প্রভাবশালী গোয়েন্দা সংস্থাকে আইনের মুখোমুখি দাড় করিয়ে দেওয়া কর্মীদের নিরাপত্তার কারনেই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

আদালতে দায়ের করা অভিযোগে বলা হয়, কানাডীয়ান  সিকিউরিটজ ইন্টেলিজেন্স সার্ভিসেস এর ভেতরে  ‘ওল্ড বয় ক্লাব কালচার’  গড়ে ওঠেছে, যারা যে কোনো অভিযোগ ধামাচাপা দিতে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। অভিযোগকারীরা  গোয়েন্দা সংস্থার দায়িত্ব পালনকালে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এবং সহকর্মীদের দ্বারা হয়রানির শিকার হওয়ার অভিযোগ তুলে বলেন, তাদের অভিযোগ  বারবারই উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এড়িয়ে গেছেন কিংবা চুপ থাকতে বলেছেন।

একজন মহিলা কর্মী অভিযোগ করেছেন,  সন্ত্রাসের দায়ে মার্কিন বাহিনীর হাতে গ্রেফতার হয়ে জেলে থাকা আফগান বংশোদ্ভূত ওমর কাদরের পরিবারের সাথে যোগাযোগ আছে- এমন একটি অপ্রমাণিত গুঞ্জনের উপর ভিত্তি করে তার সহকর্মীরা কর্মস্থলে তার সাথে কথাই বলতো না।  হিজাব পরার কারনে ব্যক্তিগত এবং ধর্মীয় কাজে যেতে বারবারই তাকে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নিয়ে যেতে হতো।

একজন সমকামী কর্মী অভিযোগ করেছেন, সংস্থার একজন সহকর্মী তাকে ইমেইল লিখে  এই বলে সতর্ক করে দিয়েছে যে ‘তোমার মুসলিম পার্টনারের ব্যাপারে সতর্ক থেকো। সমকামী হওয়ার দায়ে পাছে না আবার ঘুমের মধ্যে তোমাকে  জবাই করে দেয়।‘

অন্যএকটি অভিযোগে বলা হয়,  সংস্থার একজন  সুপারভাইজার মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা মুসলিম ব্রাদারহুডের সদস্য বলে তর্ক করেছেন। টরন্টোতে একটি সামাজিক অনুষ্ঠানে গোয়েন্দা সংস্থাটির একজন ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা  ‘সব মুসলমানই  সন্ত্রাসী’ বলে চিৎকার করেছেন।  

আদালতে মামলাটি দায়ের করার পর খোদ প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো এই ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করেছেন। তবে সরকার কিংবা গোয়েন্দা সংস্থাটির পক্ষ থেকে অভিযোগ উড়িয়ে দেওয়ার কোনো ধরনের চেষ্টাই করা হয়নি। প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো সংবাদ সম্মেলনে এই ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করতে গিয়ে বলেছেন, ‘কানাডার কোনো সরকারি দপ্তরেই  কোনো ধরনের বৈষম্য,হয়রানি বা  অসদাচারন কোনো বিচারেই গ্রহনযোগ্য নয়। তিনি বলেন, গোয়েন্দা সংস্থান নতুন পরিচালক এই ধরনের অভিযোগের শেষ দেখার জন্য  কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

গোয়েন্দা সংস্থা সিএস আইএস এর পরিচালক ডেভিড ভিগনল্ট এক বিবৃতিতে বলেছেন, সংস্থা কোনোভাবেই বৈষম্য হেনস্থা, হয়রানিকে সমর্থন করে না। তিনি বলেন, অগ্রহনযোগ্য  আচরণের যে কোনো অভিযোগই গুরুত্ব সহকারে নেওয়া হয়। 

পাঠকের মন্তব্য

শ্রেণীভুক্ত বিজ্ঞাপন

জন্মদিন/শুভেচ্ছা/অভিনন্দন


শ্রেণীভুক্ত বিজ্ঞাপন

কাজ চাই/বাড়ি ভাড়া


শ্রেণীভুক্ত বিজ্ঞাপন

ব্যক্তিগত বিজ্ঞাপন/অনুভূতি


 
 
নিবন্ধন করুন/ Registration